শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ১০:২৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
দৈনিক কালবেলার সম্পাদক হলেন আবেদ খান তাড়াশ উপজেলায় ঐতিহ্যবাহি প্রাচীনতম নওগাঁর পশুর হাট জম জমাট ভাবে জমে উঠেছে। কালের খবর খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতির মৃত্যুতে বিএমএসএফ’র শোক। কালের খবর বৃহত্তর ডেমরার কদমতলীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্থাপনা নির্মাণ ও হামলা পুলিশ নীরব পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে ব‍্যস্ত সময় পার করেছে তাড়াশ উপজেলার কামাররা। কালের খবর রাজনগরে চাঁদা না দেওয়ায় প্রবাসীর পিতা গৃহবন্দি। কালের খবর ছাই হওয়া স্বপ্ন গড়লেন লাগালেন এমপি ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন’। কালের খবর বাঘারপাড়ায়-পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আনন্দে এলাকাবাসী কে মিষ্টি খাওয়ালো (চায়ের দোকানদার) মারজোন মোল্লা। কালের খবর কানাইঘাটে বিএমএসএফ ও রেড ক্রিসেন্টের যৌথ উদ্যোগে বন্যার্তদের ফ্রি চিকিৎসাসহ ঔষধ বিতরণ। কালের খবর সরকার সারা দেশে যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন করছে : প্রধানমন্ত্রী। কালের খবর
ভারতের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন জুলাইয়ে , বৈঠক করলেন বিজেপি নেতারা। কালের খবর

ভারতের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন জুলাইয়ে , বৈঠক করলেন বিজেপি নেতারা। কালের খবর

অনলাইন ডেস্ক, কালের খবর :

ভারতের রাজ্যসভা নির্বাচন এবং দুই মাস পর হতে যাওয়া প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে কেন্দ্র করে বৈঠক করেছেন বিজেপি নেতারা। গতকাল সোমবার চার ঘণ্টা ধরে বৈঠক করেছেন অমিত শাহ, জেপি নাড্ডাসহ বিজেপির শীর্ষ নেতারা।

এনডিটিভি জানিয়েছে, বিজেপি-নেতৃত্বাধীন জোট এবং বিরোধীরা উভয় পক্ষই ভারতের নতুন প্রেসিডেন্টের জন্য তাদের নিজস্ব প্রার্থী দাঁড় করানোর পরিকল্পনা করেছে। এই নির্বাচন প্রতিফলিত করবে ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনকে।

২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে ১০ জুন রাজ্যসভার ৫৭টি আসনের জন্য মনোনয়ন শুরু হবে। তার দুই মাস পরেই প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। গতকাল বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডার বাড়িতে বিজেপি নেতারা বৈঠক করেন।

রাজ্যসভার নির্বাচনেরও প্রভাব পড়বে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের ওপর। ভারতের বর্তমান প্রেসিডেন্ট রামনাথ কোবিন্দের মেয়াদ শেষ হচ্ছে ২৫ জুলাই। বিরোধীরা এখনো প্রেসিডেন্টের জন্য একটি যৌথ প্রার্থী ঘোষণা করতে পারেনি এবং ঐক্যমত্য গড়ে তোলার জন্য বৈঠকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রী কে চন্দ্রশেখর রাও বা কেসিআর এবং মহারাষ্ট্রের নেতা শারদ পাওয়ার।

সমস্ত সাংসদ এবং বিধায়কের ভোটের মধ্যে ৪৮.৯ শতাংশ রয়েছে বিজেপি জোটের দখলে। বিরোধী দল ও অন্যান্য দলগুলোর ভোট ৫১.১ শতাংশ। তাদের প্রার্থীকে সমর্থন করার জন্য বিজেপির কেবল ২ শতাংশ সমর্থন দরকার।

ঊড়িষ্যার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পাটনায়কের বিজেডি (বিজু জনতা দল) বা অন্ধ্রপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী জগনমোহন রেড্ডির ওয়াইএসআর কংগ্রেসের সমর্থন পেলেই তারা উতরে যাবে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে।

সূত্র: এনডিটিভি।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com