শুক্রবার, ০১ জুলাই ২০২২, ০৮:০৮ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সভাপতির মৃত্যুতে বিএমএসএফ’র শোক। কালের খবর বৃহত্তর ডেমরার কদমতলীতে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্থাপনা নির্মাণ ও হামলা পুলিশ নীরব পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে ব‍্যস্ত সময় পার করেছে তাড়াশ উপজেলার কামাররা। কালের খবর রাজনগরে চাঁদা না দেওয়ায় প্রবাসীর পিতা গৃহবন্দি। কালের খবর ছাই হওয়া স্বপ্ন গড়লেন লাগালেন এমপি ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন’। কালের খবর বাঘারপাড়ায়-পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আনন্দে এলাকাবাসী কে মিষ্টি খাওয়ালো (চায়ের দোকানদার) মারজোন মোল্লা। কালের খবর কানাইঘাটে বিএমএসএফ ও রেড ক্রিসেন্টের যৌথ উদ্যোগে বন্যার্তদের ফ্রি চিকিৎসাসহ ঔষধ বিতরণ। কালের খবর সরকার সারা দেশে যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন করছে : প্রধানমন্ত্রী। কালের খবর শাহজাদপুরে বাধা দেয়ার পরও সহবাস করায় ব্লেড দিয়ে স্বামীর লিঙ্গ কর্তন করলো স্ত্রী!। কালের খবর পদ্মাসহ সকল সেতুতে সাংবাদিকদের টোল ফ্রি করা উচিৎ: বিএমএসএফ। কালের খবর
সিরাজগঞ্জে ক্ষীরার বাম্পার ফলন কৃষকের মুখে হাসি। কালের খবর

সিরাজগঞ্জে ক্ষীরার বাম্পার ফলন কৃষকের মুখে হাসি। কালের খবর

মোঃ মুন্না হুসাইন তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি, কালের খবর : সিরাজগঞ্জের চলনবিল এলাকার তাড়াশে এবার ক্ষীরার ফলন হয়েছে আশাতীত। আর এ অঞ্চলের ক্ষীরার চাহিদা রয়েছে সারাদেশেই। এদিকে ক্ষীরার দাম ভাল পাওয়ায় লাভের মুখ দেখছেন কৃষকরা। হাসি কৃষকের মুখে। জানা যায়, চলতি মৌসুমে উপজেলায় সাড়ে ৪২৭ হেক্টর জমিতে ক্ষীরা চাষ করা হয়েছে। যা গত বছরের লক্ষ্য মাত্রার চেয়ে ৭৫ হেক্টর বেশি। ক্ষীরাকে কেন্দ্র করে তাড়াশ উপজেলার দিঘরীয়া গ্রামে গড়ে উঠেছে ক্ষীরার মৌসুমি হাট। এ হাটে প্রতিদিন ঢাকা, বগুড়াসহ দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে পাইকার এসে ক্ষীরা ক্রয় করেন। কৃষক জামাল উদ্দিন বলেন, এ বছর আমি ৩ বিঘা জমিতে ক্ষিরার চাষ করেছি। ৩ বিঘা জমিতে ক্ষিরা চাষ করতে ৫০ থেকে ৫৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। আবহাওয়া অনুকুলে থাকায় ফলন অনেক ভাল হয়েছে। বাজার দর ভাল থাকলে খরচ বাদে ৫০ থেকে ৬০ হাজার টাকা লাভ হবে। উপজেলার দিঘরীয়া গ্রামে কৃষক মজনু জানান, ধান চাষের পাশাপাশি এ বছর আড়াই বিঘা জমিতে ক্ষিরা চাষ করেছি। প্রতি বিঘা জমিতে প্রায় ১০০ থেকে ১২০ মণ করে ক্ষীরার ফলন হবে। বর্তমান বাজারে প্রতি বস্তা ক্ষিরা ১ হাজার ১৫০ থেকে ১ হাজার ২০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। বাজার দর এ রকম থাকলে আড়াই বিঘা জমিতে ৩৮ থেকে ৪০ হাজার টাকা লাভ হবে। চলনবিলের তাড়াশের দিঘুরীয়া, রানীর হাট ও কোহিতসহ ১৫টি গ্রামে গড়ে উঠেছে ক্ষীরা বিক্রির অস্থায়ী আড়ত। উপজেলার কোহিত, সাচানদিঘি, সান্দুরিয়া, সড়াবাড়ি, বারুহাস, দিঘুরীয়া, দিয়ারপাড়া, তালম সাতপাড়া, নামো সিলট, খাসপাড়া, বড় পওতা, তেঁতুলিয়া, ক্ষীরপোতা, খোসালপুর, বরগ্রাম, বিয়াস আয়সে ও পিপুলসোন গ্রামের মাঠের পর মাঠ ক্ষীরার আবাদ হয়েছে। অনেক কৃষক লাভের আশায় নিজের জমি না থাকায় জমি লিজ নিয়ে ক্ষীরার আবাদ করেন। আর ওই ক্ষীরার বিক্রিকে কেন্দ্র করে উপজেলার দিঘুরীয়া এলাকায় বসেছে বড় ক্ষীরার আড়ত। এ আড়তে প্রতিদিন উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের কৃষকরা ক্ষীরা বিক্রি করার জন্য এ আড়তে ভিড় করেছেন। এদিকে আড়ত থেকে বিভিন্ন জেলার পাইকাররা ট্রাকে করে ক্ষীরা কিনতে আসেন। এলাকার ক্ষীরা সাধারণত ঢাকা, রাজশাহী, চট্রগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় চলে যায়। প্রতিদিন শত শত মেট্রিক টন ক্ষীরা বেচা-কেনা হচ্ছে। তাড়াশে উৎপাদিত ক্ষীরা যাচ্ছে ঢাকাসহ সারাদেশের বিভিন্ন এলাকায়। এ আড়ৎ থেকে প্রতিদিন ৪৫ থেকে ৫০ মে. টন ক্ষীরা যাচ্ছে শুধু রাজধানী ঢাকায়। তাড়াশ উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবিদ লুৎফুন্নাহান লুনা বলেন, উপজেলার ফসলী জমিতে ক্ষিরা চাষ খুব ভালো হয়। কৃষি অফিসের লোকজন সার্বক্ষণিক কৃষকদেরকে ক্ষীরা চাষে উৎসাহ ও পরার্মশ দিয়ে সহযোগীতা করে আসছেন। ক্ষীরা চাষে কৃষকরা অন্যান্য কৃষি দ্রব্যের তুলনায় ভাল লাভবান হতে পারেন।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com