মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৩৮ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ফুলপুর-তারাকান্দা মহাসড়কে অবৈধ যানবাহনের নিয়ন্ত্রণহীন চলাচলে বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনা। কালের খবর

ফুলপুর-তারাকান্দা মহাসড়কে অবৈধ যানবাহনের নিয়ন্ত্রণহীন চলাচলে বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনা। কালের খবর

ময়মনসিংহ প্রতিনিধি, কালের খবর :

ময়মনসিংহের ফুলপুর-তারাকান্দা মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কে বাড়ছে অবৈধ যানবাহনের সংখ্যা। নসিমন, পিকআপ, অটোরিকশা, ভ্যান, বালুভর্তি ট্রাক, ট্রলির নিয়ন্ত্রণহীন চলাচলে বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনা। সড়কও জনপথ বিভাগ, স্থানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে তেমন নজরদারী না থাকায় থামছে না সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত স্বজনদের আহাজারী।

২০১৯ সালের ১ জানুয়ারি থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত ফুলপুর-তারাকান্দা মহাসড়ক ও আঞ্চলিক সড়কগুলোতে পৃথক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছে ৩৬ জন, আহত ২ শতাধিক। ফুলপুর থেকে তারাকান্দার ২০ কি.মি সড়কে ৪০টি গতিরোধকের কারণে বাড়ছে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা। সামাজিক মাধ্যম, বিভিন্ন সংগঠন ও ফুলপুর-তারাকান্দা থানা সূত্রে এ হতাহতের সংখ্যা জানা গেছে।
২০১৮ সালে এ সড়কে নিহত হয়েছিল ২০ জন, আহত প্রায় শতাধিক। এ ছাড়া ব্যস্ততম এ সড়ক ও ফুলপুর-তারাকান্দা বাসস্ট্যান্ড এলাকায় যানযটমুক্ত করতে পারছে না প্রশাসন। অবৈধ যানবাহন ও দখলদারির কারণে বাড়ছে সড়ক দুর্ঘটনা ও যানজট। এসব দুর্ঘটনায় অধিকাংশ সময় মামলা করে পুলিশ।

অনুসন্ধানে জানা যায়, অনেক সময় সড়ক দুর্ঘটনায় মৃতদেহ বিকৃত হয়ে যায়। দুর্ঘটনা স্থান থেকে এসব লাশ উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ মর্গে পাঠায়। লাশের পরিচয় শনাক্তে রীতিমত হিমশিম খেতে হয় সংশ্লিষ্টদের। অধিকাংশ সড়ক দুর্ঘটনায় নিহতের পরিবার হয়রানির ভয়ে মামলা করতে অনিচ্ছুক থাকায় পুলিশ নিজেই বাদী হয়ে মামলা করে। দীর্ঘদিন বাদীর পক্ষে তেমন পদক্ষেপ না থাকায় আইনের ফাঁকে সহজেই দায়ী চালকেরা পার হয়ে যায়। অনেক সময় সড়ক দুর্ঘটনার স্থানে স্থানীয়দের আন্দোলনের পর সান্ত্বনা স্বরূপ গতিরোধকের ব্যবস্থা করে কর্তৃপক্ষ।

বিশেষজ্ঞদের অভিমত, এ গতিরোধকের কারণে ঘন ঘন মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা যেমনি হচ্ছে তেমনি যানবাহন চলাচলে হচ্ছে বিড়ম্বনা। অন্যদিকে সময় বেশী নিয়ে চলতে হচ্ছে যাত্রীদের। এ ছাড়া চালকদের পড়তে হয় চরম ভোগান্তিতে। বাস চালকের দ্রুতগতির কারণ ও ট্রাক-ট্রলীর নিয়ন্ত্রণহীন চলার ফলে শুধুমাত্র ২০১৯ সালে মোটরসাইকেল চালক ও আরোহীর মৃতের সংখ্যা ২৬।
জানা যায়, ফুলপুর-বাসস্ট্যান্ড, তারাকান্দা বাসস্ট্যান্ড এলাকা অবৈধভাবে দখল করে অধিকাংশ জায়গায় দোকান-পাট, ব্যবসা-বাণিজ্য গড়ে ওঠায় সেখানে মানুষের উপচে পড়া ভিড় থাকে। অবৈধভাবে চলাচল করা ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, ট্রলি, পিকআপ ভ্যানের কারণে ফুলপুর-তারাকান্দা পৌরবাসীর পড়তে হচ্ছে চরম ভোগান্তিতে।

স্থানীয়দের দাবি, ফুলপুর-তারাকান্দার বাসস্ট্যান্ডকে দখলদারদের হাত থেকে দখলমুক্ত ও অবৈধ যানবাহন চলাচল বন্ধ ও নিয়ন্ত্রণ না করলে এ সড়কে দুর্ঘটনা আরো বাড়বে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে তারাকান্দা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ফজলুল হক কালের কণ্ঠকে জানান, ফুলপুর-তারাকান্দা সড়কের কাকনী, গোপালপুর, কোদালধর, আলালপুরে, সড়কে রাস্তাটি চলাচলে আঁকাবাঁকা ও ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় ঘনঘন দুর্ঘটনা হচ্ছে। এ ছাড়া যানযট ও দখলমুক্ত করতে উপজেলা প্রশাসন এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে।

ফুলপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সাইফুল ইসলাম জানান, দ্রত সময়ের মধ্যে অবৈধভাবে মহাসড়কের পাশ ও ফুলপুর বাসস্ট্যান্ড দখলমুক্ত করা হবে।

ফুলপুর হেলডস ওপেন স্কাউটের সাধারণ সম্পাদক তাসফিক হক নাফিও জানান, অবৈধ যানচলাচল ও অদক্ষ ড্রাইবারদের কারণে সড়ক দুর্ঘটনা ক্রমশ বাড়ছে। সড়কে মানুষের চলাচল নিরাপত্তা দিতে হলে অবৈধ যানবাহন বন্ধ করতে হবে।

ফুলপুর থানার ওসি ইমারত হোসেন গাজী জানান, সড়কে দুর্ঘটনা ও যানজট কমাতে ট্রাফিক পুলিশ বাড়ানো হয়েছে। সড়কে দুর্ঘটনা কমাতে সিএনজি ও থ্রি হুইলার মালিক সমিতির সাথে কথা হয়েছে এবং মহাসড়কে অবৈধ যানচলাচল সম্পূর্ণ নিষেধ করা হবে।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com