বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৬:১১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
নবীনগর পৌরসভায় সুবিধা বঞ্চিত মুসলিম পরিবার গুলো, দেখার যেন কেউ নেই। কালের খবর যশোরের অভয়নগরে ৮ বছরের শিশু কে ধর্ষণের পর হত্যা, ঘাতক পুলিশের হাতে আটক। কালের খবর ঢাকায় জার্নালিস্ট শেল্টার হোম শীঘ্রই উদ্বোধন!। কালের খবর মতলব দক্ষিণের ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান কামাল গাজী জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি। কালের খবর তালায় প্রতিবন্ধী সাংবাদিক সিরাজুলের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় থানায় এজাহার, নিরাপত্তার জন্য জিডি। কালের খবর সখীপুরে জমি নিয়ে সংঘর্ষে ছোট ভাই খুন। কালের খবর নবীনগর উপজেলা প্রকৌশলির বিরুদ্ধে কাজ না করে মোটা অংকের টাকা আত্মসাৎ এর গুঞ্জন পা দিয়ে লিখে চতুর্থবার জিপিএ-৫ পেলেন তামান্না। কালের খবর মৌলভীবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের নিবন্ধন পত্র গ্রহণ। কালের খবর পুলিশ সম্মেলন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপিসহ ৬ জন নিউ ইয়র্কে যাবেন। কালের খবর
মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে বন্যায় সাড়ে আট হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত। কালের খবর

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে বন্যায় সাড়ে আট হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত। কালের খবর

শেখ মো:সোহেল রানা , লৌহজং উপজেলা প্রতিনিধি , কালের খবর :
  :  মুন্সীগজ্ঞ জেলার লৌহজং প্রতিদিনই পদ্মার পানি হুহু করে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে প্রতিদিন নতুন নতুন এলাকায় বন্যার পানিতে প্লাবিত হচ্ছে। এদিকে থেমে নেই রাক্ষুসে পদ্মার ছোঁবল। ভাঙ্গছে ফসলি জমি সহ বিভিন্ন রাস্তাঘাট। বন্ধ হয়ে যাচ্ছে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার যোগাযোগের প্রধান ও শাখা সড়ক। মানুষের অাশ্রয় স্থান বাড়ী-ভিটে মাটি হাড়াচ্ছে।
অসহায় মানুষদের সার্বিক অবস্থা দেখতে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে বন্যায় প্লাবিত ও নদী ভাঙ্গান এলাকা পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খান।উপজেলার কুমারভোগ, হলদিয়া, কনকসার, লৌহজং-তেউটিয়া, বেজগাও, কলমা ও গাওদিয়া ইউনিয়নে তালিকাভুক্ত ৮ হাজার ২৯৫টি পরিবার বন্যায় প্লাবিত হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। সে সাথে কনকসার ইউনিয়নের ১৭টি পরিবার ও খড়িয়া, দক্ষিন হলদিয়াসহ শতাধিক পরিবারের ভিটেমাটি পদ্মায় বিলীন হয়ে গিয়েছে। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে চরাঞ্চলের মানুষ। লৌহজংয়ের চরের প্রতিটি ঘরে পানি উঠে গিয়েছে। চরের মানুষের ঘুমানোর মতো জায়গা নেই বললেই চলে। ঘরবাড়িসহ গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে হাজার হাজার পরিবার। মাথা গোঁজার জন্য চর থেকে ছুটে আসছে ডাঙ্গায়। এদিকে উপজেলা প্রশাসন এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয় থেকে এ পর্যন্ত ৩৫ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। সে সাথে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ চলমান রয়েছে। বন্যার্ত পরিবারের মাঝে শুক্ল খাবার বিতরণ করা হবে।
লৌহজং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খাঁন জানান, পদ্মার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় লৌহজংয়ের বিভিন্ন গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। আমরা উপজেলা প্রশাসন অসহায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে আছি। তাদের খাদ্য সহয়ত চলমান আছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সাজেদা সরকার জানান, লৌহজংয়ের বন্যার পরিস্থিতি ভালো না। এ পর্যন্ত তালিকাভুক্ত ৮ হাজার ২৯৫টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে বেশ কয়েকটি আশ্রয়ণ কেন্দ্র খুলে দেওয়া হয়েছে। যাতে বন্যায় প্লাবিত ও নদী ভাঙ্গার অসহায় মানুষ এখানে এসে আশ্রয় নিতে পারে। গবাদিপশুর জন্য সেড (ঘর) তুলে দেওয়া হয়েছে। সে সাথে এ পর্যন্ত ৩৫ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। এবং আগামীকাল ৩ শতাধিক পরিবারকে শুক্ল খাবার বিতরণ করা হবে।
সকালে বন্যায় প্লাবিত ও নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন, লৌহজং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মু. রাশেদুজ্জামান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাজেদা সরকার, দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা ইমরান হোসেন তালুকদার, কনকসার ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, লৌহজং উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি মোস্তাক আহম্মেদ নূর নবী প্রমূখ।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com