বুধবার, ২৪ নভেম্বর ২০২১, ০৭:৫৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
যশোর সদর হাসপাতালে দালালদের কাছে জিম্মি রোগীরা। কালের খবর উৎপাদনে নতুন ‘দেশি মুরগি’, ৮ সপ্তাহে হবে এক কেজি। কালের খবর ইউপি নির্বাচনে শাহজাদপুরের ১০ ইউনিয়নে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা। কালের খবর যশোরের শার্শায় শোকজের জবাবের আগেই যুবলীগ নেতা বহিষ্কার! কালের খবর জাতীয় শ্রমিক লীগের উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মন্টুর প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত। কালের খবর ডেমরায় শীতের শুরুতেই বাড়ছে শিশুদের মৌসুমি রোগ মানবতা ও আদর্শ সমাজ গঠনে ইসলামপুরে অসহায় দুস্থদের মাঝে শীতবস্ত্র বিতরণ। কালের খবর ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে দশমিনায় সংবাদ সম্মেলন। কালের খবর যশোরে সমিতির সংঘবদ্ধ প্রতারকের প্রলোভনে পড়ে অর্থাভাবে মারা গেছেন ৫৭ জন, বহু শয্যাশায়ী। কালের খবর ডেমরায় আ.লীগের নতুন কার্যালয় উদ্বোধন। কালের খবর
মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে বন্যায় সাড়ে আট হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত। কালের খবর

মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে বন্যায় সাড়ে আট হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত। কালের খবর

শেখ মো:সোহেল রানা , লৌহজং উপজেলা প্রতিনিধি , কালের খবর :
  :  মুন্সীগজ্ঞ জেলার লৌহজং প্রতিদিনই পদ্মার পানি হুহু করে বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে প্রতিদিন নতুন নতুন এলাকায় বন্যার পানিতে প্লাবিত হচ্ছে। এদিকে থেমে নেই রাক্ষুসে পদ্মার ছোঁবল। ভাঙ্গছে ফসলি জমি সহ বিভিন্ন রাস্তাঘাট। বন্ধ হয়ে যাচ্ছে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার যোগাযোগের প্রধান ও শাখা সড়ক। মানুষের অাশ্রয় স্থান বাড়ী-ভিটে মাটি হাড়াচ্ছে।
অসহায় মানুষদের সার্বিক অবস্থা দেখতে মুন্সীগঞ্জের লৌহজংয়ে বন্যায় প্লাবিত ও নদী ভাঙ্গান এলাকা পরিদর্শন করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খান।উপজেলার কুমারভোগ, হলদিয়া, কনকসার, লৌহজং-তেউটিয়া, বেজগাও, কলমা ও গাওদিয়া ইউনিয়নে তালিকাভুক্ত ৮ হাজার ২৯৫টি পরিবার বন্যায় প্লাবিত হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। সে সাথে কনকসার ইউনিয়নের ১৭টি পরিবার ও খড়িয়া, দক্ষিন হলদিয়াসহ শতাধিক পরিবারের ভিটেমাটি পদ্মায় বিলীন হয়ে গিয়েছে। সরজমিনে গিয়ে দেখা যায় বন্যায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে চরাঞ্চলের মানুষ। লৌহজংয়ের চরের প্রতিটি ঘরে পানি উঠে গিয়েছে। চরের মানুষের ঘুমানোর মতো জায়গা নেই বললেই চলে। ঘরবাড়িসহ গবাদিপশু নিয়ে বিপাকে হাজার হাজার পরিবার। মাথা গোঁজার জন্য চর থেকে ছুটে আসছে ডাঙ্গায়। এদিকে উপজেলা প্রশাসন এবং দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রণালয় থেকে এ পর্যন্ত ৩৫ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। সে সাথে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ চলমান রয়েছে। বন্যার্ত পরিবারের মাঝে শুক্ল খাবার বিতরণ করা হবে।
লৌহজং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খাঁন জানান, পদ্মার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় লৌহজংয়ের বিভিন্ন গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। আমরা উপজেলা প্রশাসন অসহায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের পাশে আছি। তাদের খাদ্য সহয়ত চলমান আছে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সাজেদা সরকার জানান, লৌহজংয়ের বন্যার পরিস্থিতি ভালো না। এ পর্যন্ত তালিকাভুক্ত ৮ হাজার ২৯৫টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। উপজেলার ৪টি ইউনিয়নে বেশ কয়েকটি আশ্রয়ণ কেন্দ্র খুলে দেওয়া হয়েছে। যাতে বন্যায় প্লাবিত ও নদী ভাঙ্গার অসহায় মানুষ এখানে এসে আশ্রয় নিতে পারে। গবাদিপশুর জন্য সেড (ঘর) তুলে দেওয়া হয়েছে। সে সাথে এ পর্যন্ত ৩৫ মেট্রিক টন চাল বিতরণ করা হয়েছে। এবং আগামীকাল ৩ শতাধিক পরিবারকে শুক্ল খাবার বিতরণ করা হবে।
সকালে বন্যায় প্লাবিত ও নদী ভাঙ্গন এলাকা পরিদর্শনকালে উপস্থিত ছিলেন, লৌহজং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মু. রাশেদুজ্জামান, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা সাজেদা সরকার, দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা ইমরান হোসেন তালুকদার, কনকসার ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, লৌহজং উপজেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি মোস্তাক আহম্মেদ নূর নবী প্রমূখ।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com