মঙ্গলবার, ০২ অগাস্ট ২০২২, ১১:২১ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
চলনবিলে খাল বিল শুকিয়ে নেমে এসেছে বিপর্যয়। কালের খবর ঢাকায় ৯ ফ্ল্যাট ২ প্লট পাসপোর্ট অধিদপ্তরের পরিচালকের রাজশাহীর ভদ্রায় ডিসির অনুমোদন নিয়ে চলছে পুকুর ভরাট সিদ্ধিরগঞ্জে দাবিকৃত চাঁদা না পেয়ে ব্যবসায়ীকে হত্যা করে লাশ গুমের হুমকি, থানায় অভিযোগ। কালের খবর ডিজিটাল আইনে মামলা দিয়ে সাংবাদিকদের হয়রানি করা হচ্ছে : বিএফইউজে। কালের খবর সাংবাদিক স্ত্রী প্রধান শিক্ষক মোসাম্মৎ রাশিদা আক্তারের দিত্বীয় মৃত্যুবার্ষিকী। কালের খবর লেবেল কেটে ২০ টাকার সিরাপ ৩৫ টাকায় বিক্রি করায় জরিমানা দিলেন ৩৭ হাজার। কালের খবর সখীপুরে এমপি’র অনুষ্ঠান বর্জনের ঘোষণা, সাংবাদিকদের মৌন মিছিল। কালের খবর আমিরাতে বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের নতুন কমিটি। কালের খবর তাড়াশে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে তরুণীর অনশন। কালের খবর
শেরপুর পুলিশ সুপারের অনন্য উদ্যোগ

শেরপুর পুলিশ সুপারের অনন্য উদ্যোগ

শেরপুর প্রতিনিধি,

 Goodman Travels

 

শেরপুরে করোনা মোকাবিলায় জেলা প্রশাসন ও সিভিল সার্জন কার্যালয়ের পাশাপাশি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে পুলিশ বিভাগ। জনসাধারণের সেবা নিশ্চিত করতে পুলিশ সদস্যদের সার্বক্ষণিক মাঠ পর্যায়ে কাজ চালিয়ে যেতে হচ্ছে। এ জন্য তাদের শারীরিক সক্ষমতা ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি জরুরি। তাই জেলা পুলিশ সুপার আশরাফুল আজীমের নির্দেশনায় গত এক মাস যাবৎ জেলার পাঁচ উপজেলার প্রতিটি থানায় প্রাতঃকালীন অনুশীলন শুরু হয়েছে।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আমিনুল ইসলাম জানান, এ অনুশীলনে পুলিশ লাইনস’র সদস্য, প্রতিটি থানার পুলিশ সদস্য, গোয়েন্দা শাখার সদস্য, কোর্ট পুলিশ এবং বিভিন্ন ফাঁড়িতে কর্মরত পুলিশ সদস্যরা অংশ নিচ্ছেন। তারা থানা চত্বরে এবং সড়কে দৌঁড়ে অনুশীলন চালায়। প্রতিটি ইউনিটে একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তার তত্বাবধানে চলছে এ অনুশীলন। এর মাধ্যমে পুলিশ সদস্যদের শারীরিক সক্ষমতা যেমন বৃদ্ধি পাবে অন্যদিকে বাহিনীর শৃঙ্খলা উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (নালিতাবাড়ী সার্কেল) জাহাঙ্গীর আলম জানান, জেলার সদর উপজেলাসহ নালিতাবাড়ী, ঝিনাইগাতী, শ্রীবরদী ও নকলা থানায় কর্মরত নয় শতাধিক পুলিশ সদস্য এ অনুশীলনে অংশ নিচ্ছে। প্রতিদিন ভোর সাড়ে পাঁচটা থেকে সাড়ে ছয়টা পর্যন্ত চলে এ অনুশীলন।

জামাল আহমেদ নামে একজন অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক জানান, করোনা মোকাবিলায় শেরপুর পুলিশ বিভাগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। পুলিশ সদস্যরা করোনা আক্রান্ত রোগীদের হাসপাতালে পৌঁছে দিচ্ছে। রোগীসহ স্বজনদের খাদ্যসামগ্রী দিয়ে সহায়তা করছে। প্রতিটি রোগীর বাড়ি লকডাউন কার্যকরে ভূমিকা রাখছে। করোনায় মৃত ব্যক্তির সৎকারে সাহায্য করছে। শুধু তাই না অনেক ক্ষেত্রে পুলিশ সুপার নিজে করোনা রোগীর বাড়ি গিয়ে খাবার সরবরাহ করছেন। এছাড়া ওইসব বাড়ির নিরাপত্তা বিধানে কার্যকর পদক্ষেপ নিচ্ছেন।

এ অনুশীলন কার্যক্রম পুলিশ সুপারের একটি অনন্য উদ্যোগ উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘জেলার ১৬ লাখ মানুষের নিরাপত্তা ও সেবা নিশ্চিত করতে পুলিশ সদস্যদের শারীরিক সক্ষমতা ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করা জরুরি। কারণ তারা সুস্থ থাকলেই জনসাধারণের সেবা নিশ্চিত হবে।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com