শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০২:৪০ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
আগুন নেভানোর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেই যশোরের অধিকাংশ হাসপাতাল ও ক্লিনিকে। কালের খবর তাড়াশ উপজেলায় আবারও ধুম পরেছে পাট ধোয়ার। কালের খবর তাড়াশ উপজেলায় মহেশরৌহালী সরকারী প্রাথমিক বিদ‍্যালয়ে দূরর্নীতির আভিযোগ উঠেছে। কালের খবর গ্রামবাসীর ধাওয়া খেয়ে পালালেন যৌণ হয়রানির অভিযোগে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক সবুর মাষ্টার। কালের খবর পদ্মা সেতুর প্রভাবে যশোরে বিমান যাত্রী কমেছে ৫০ শতাংশ। কালেন খবর জরাজীর্ণ ভবনে ঝুঁকিপূর্ণ পাঠদান, আট শত শিক্ষার্থীর জন্য ৫ শিক্ষক। কালের খবর বাঙালির হৃদয় থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম কোন অপশক্তি মুছে ফেলতে পারবেনা : এম এ সালাম। কালের খবর সাভারে সাংবাদিককে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন সাংবাদিকরা। কালের খবর নেপালের কাঠমান্ডুতে আন্তর্জাতিক জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দিলেন সাংবাদিক এম আই ফারুক আহমেদ। কালের খবর দিঘলিয়ার সেনহাটী মহা শ্মশান ঘাট রক্ষায় স্থানীয় এমপি’র পদক্ষেপ। কালের খবর
তাড়াইল সদরে পাবলিক টয়লেটে ময়লার ভাগাড়। কালের খবর

তাড়াইল সদরে পাবলিক টয়লেটে ময়লার ভাগাড়। কালের খবর

তাড়াইল,( কিশোরগঞ্জ) থেকে ওয়াসিম উদ্দিন সোহাগ, কালের খবর ঃ  তাড়াইল উপজেলা সদর বাজারে পাবলিক টয়লেটের অব্যবস্থাপনায় সাধারন মানুষের দূর্ভোগ চরমে।
এই বাজারে পবালিক টযলেটের চাহিদা নূন্যতম দশ থেকে পনেরটি সেখানে রয়েছে অব্যাবস্থাপনায় মাত্র দু’টি। টয়লেটের সামনে রয়েছে ময়লার স্তুপ। ফলে এসব পাবলিক টয়লেট নিয়ে ভোগান্তিতে পড়েছে প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা সাধারন জনগণ ও বাজারের সংশ্লিষ্ট কয়েক হাজার মানুষ।

জানা যায়, এ দুুু’টি পাবলিক টয়লেট নির্মান করেছিল তাড়াইল-সাচাইল সদর ইউনিয়ন পরিষদ। পরে দীর্ঘ দিনেও এ টয়লেট গুলির সংস্কারে উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।দেখা যায়, উপজেলা সদর বাজারে রয়েছে প্রায় পাঁচ শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। আর এই বাজারে প্রতিদিন ভীড় জমায় উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আসা কয়েক হাজার মানুষ। পাবলিক টয়লেটটির পরিবেশ নোংরা,দূর্গন্ধ ও ময়লার স্তুপের কারণে ব্যবহারের অনুপযোগী হওয়ার উপক্রম। ফলে নিরুপায় হয়ে অনেকেই প্রাকৃতিক ডাকে সাড়া দিচ্ছে বাজারের পরিত্যক্ত চিপা গলি ও খোলা জায়গায়, কিংবা মসজিদ মাদ্রসার টয়লেটে। সেখানেও সুরক্ষার জন্য তালাবদ্ধ থাকায় সাধারণ জনগণের দূর্ভোগের শেষ নেই। বর্তমান টয়লেট গুলিতে দুর্গন্ধ ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশেরে ফলে ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে বাজারে ব্যবসায়ী ও বসবাসকারীদের।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় নোংরা অনুপযোগী এই টয়লেটও প্রাকৃতিক কাজ সাড়তে প্রতিজনের কাছ থেকে পাঁচ টাকা করে নেওয়া হয়। পাশেই একটি চা স্টলের মালিকের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন আগে টাকা নেওয়া হত এখন আর কোন টাকা নেওয়া হয়না। এ ব্যাপারে তাড়াইল বাজার বনিক সমিতির সাধারন সম্পাদক রুনু দত্ত র সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, বর্তমান পাবলিক টয়লেটটি মুজিবুল হক চুন্নু সাহেব মন্ত্রী থাকার সময় আমরা তার কাছ থেকে চেয়ে এনেছিলাম। আর আমাদের বাজারে কোন নির্ধারিত পরিচন্ন কর্মী না থাকায় কিছুদিন পরপর এরকম অবস্থার মুখোমুখি হতে হয়। কিছুদিন আগে টাকা নেওয়া হত কারন কাউকে দায়িত্ব দিলে তাকে কিছু টাকা না দিলে এমনিতে দায়িত্ব নিতে চায়না। বর্তমানে এই ব্যবস্থাটিও নেই। তিনি আরো বলেন,এই জনবহুল বাজারে আরো অনেকগুলি পাবলিক টয়লেট প্রয়োজনের কথা জানান।

সচেতন মহল মনে করেন, সরকারীভাবে প্রতি বছর এ বাজারটি ইজারা হয়। প্রতি বছর এখানকার দোকানীরা খাজনা দেয়। কিন্তু এখানে কোনো স্বাস্থ্যসম্মত পাবলিক টয়লেট না থাকায় প্রতিনিয়ত ভোগান্তিতে পড়তে হয় ব্যবসায়ী ও বাজারে আসা লোকজনদের।

তারা আরো জানান, দু’টি মাত্র পাবলিক টয়লেট সেটিও ব্যবহারের অনুপোযোগী হয়ে পড়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে পুরাতন পাবলিক টয়লেটটি মেরামত করে ব্যবহারের উপযোগী করার পাশাপাশি নতুন পাবলিক টয়লেট নির্মাণের জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানান তারা।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com