সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৭:৪৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কোটাবিরোধী আন্দোলন-আবারও রাজনীতির মাঠে ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। কালের খবর চালের দাম আরও বাড়লো, সবজি আলু পেঁয়াজেও অস্বস্তি। কালের খবর খুনি ওসি প্রদীপের হাতে নির্যাতিত সাংবাদিকের আহাজারি। কালের খবর বন্দরে ৬ প্রতারকের বিরুদ্ধে আদালতে চাজশীট দাখিল। কালের খবর মুরাদনগরে মাদক বিরোধী সমাবেশ। কালের খবর সাংবাদিক জুয়েল খন্দকারের বিরুদ্ধে কাউন্সিলর সাহেদ ইকবাল বাবুর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত। কালের খবর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ঠিকাদারদের সাথে লিরা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ”র মতবিনিময় সভা-সম্পন্ন। কালের খবর গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী আমান উল্লাহ বিরুদ্ধে কাজ না করেই সরকারি বরাদ্দের কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎতের অভিযোগ!। কালের খবর স্ত্রীর যৌতুক মামলায়,ব্যাংক কর্মকর্তা রাশেদের শেষ রক্ষা মিলেনি বাকলিয়া থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার। কালের খবর নবীনগর থানা প্রেস ক্লাবের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে কমিটি গঠন, সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মমিনুল হক রুবেল। কালের খবর
নগ্ন করে মা-মেয়েকে রাস্তায় হাঁটাল গ্রামবাসী

নগ্ন করে মা-মেয়েকে রাস্তায় হাঁটাল গ্রামবাসী

কালের খবর ডেস্ক :

ভারতের উত্তর ঝাড়খণ্ড রাজ্যে ডাকিনী বিদ্যাচর্চার অভিযোগে দুই নারীকে হেনস্তা করার দায়ে ১১ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
৬৫ বছর বয়সী ওই নারী ও তার কন্যাকে নগ্ন করে রাস্তায় হাঁটানো হয়। তাদের মানুষের বিষ্ঠা খেতে বাধ্য করা হয়েছে।
হেনস্তার শিকার কন্যা বলেন, গ্রামবাসী তাদের বিরুদ্ধে রোগ ছড়ানোর অভিযোগ এনেছেন।
ডাকিনী বিদ্যাচর্চার অভিযোগে ভারতে প্রায় নারীদের হেনস্তা কিংবা হত্যার শিকার হতে হচ্ছে।
বিশেষজ্ঞরা বলেন, এই হামলার পেছনে কুসংস্কারাচ্ছন্ন বিশ্বাস কাজ করছে। কিন্তু কখনও কখনও বিধবা নারীদের তাদের বসতবাড়ি থেকে বিতাড়িত করতে এ হামলা চালানো হয়।
ওই নারী বলেন, বৃহস্পতিবার তার প্রতিবেশীরা হঠাৎ করে তাদের দরজায় জোরে ধাক্কা দিতে শুরু করে। তারা বলছেন- আমরা নাকি ডাকিনী বিদ্যাচর্চা করছি।
পরিবারের এক সদস্যের মৃত্যুর পর ওই নারী স্থানীয় হাতুড়ে ডাক্টারের কাছে চিকিৎসা নিতে গিয়েছিলেন। পরিবারের সদস্যদের মৃত্যুর জন্য ওই ডাক্টার তাদের দায়ী করেন।
মেয়েটি বলেন, পরের দিন গ্রামবাসী আমাদের শাস্তি দিয়েছে। ডাকিনী বিদ্যাচর্চার কথা আমরা অস্বীকার করার পরও আমাদের জোর করে দাহ করার জায়গা নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে লোকজন আমাদের মুখের ওপর মলমূত্র ত্যাগ করে এবং সেগুলো খেতে আমাদের বাধ্য করে।
এর পর তাদের চুল কেটে নগ্ন করে গ্রামজুড়ে হাঁটানো হয়েছে। তখন তাদের পিছু পিছু গ্রামবাসীরাও হাঁটছিলেন।
তারা বলেন, আমরা ব্যাপক ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছিলাম। কিন্তু কেউ আমাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেননি।

কালের খবর/২০/২/১৮

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com