শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০৯:৪১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
যশোরের কেশবপুরে শান্তি স্থাপন ও সহিংসতা নিরসনে (পিএফজি, র) সভা অনুষ্ঠিত। কালের খবর রায়পুরার ছাত্রলীগ নেতা মামুনকে জড়িয়ে মিথ্যা ও হয়রানি মূলক ধর্ষণ মামলাসহ একাধিক মামলা করায় সর্বমহলে নিন্দা। কালের খবর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ এর ৫৬ ধারার প্রয়োগ’ শীর্ষক সেমিনারে.প্রধান অতিথি সিএমপি কমিশনার। কালের খবর সহিংসতা নয়-শান্তির জন্য আমরা-এই শ্লোগান কে সামনে রেখে বাঘারপাড়ায় অনুষ্ঠিত হলো (পিএফজির) সম্মিলিত কার্যক্রম ও পরিকল্পনা প্রণয়ন সভা। কালের খবর ঢাকা জেলা রেজিস্ট্রার অহিদুল ইসলাম সাময়িক বরখাস্ত। কালের খবর বাঘারপাড়া প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি সাংবাদিক লক্ষণ চন্দ্র মন্ডলের মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলের শোক। কালের খবর যুবদের নেতৃত্বে সঠিক কর্মপরিকল্পনা গ্রহনের ফলে , সমাজে সহিংসতা নিরসন ও শান্তি স্থাপন হতে পারে। কালের খবর কোরবানির পশু প্রস্তুত করতে ব্যস্ত সাতক্ষীরার খামারিরা। কালের খবর চট্টগ্রামের ইপিজেডে ছুরিকাঘাতে যুবক খুন, ঘটনায় জড়িত মূল হোতাসহ ২জন গ্রেপ্তার। কালের খবর রাজধানী ঢাকা শহরে কোনো ব্যাটারিচালিত রিকশা চলবে না : সড়ক পরিবহনমন্ত্রী। কালের খবর
৩৩ বার বিদেশ গমন অতঃপর গ্রেফতার

৩৩ বার বিদেশ গমন অতঃপর গ্রেফতার

কালের খবর প্রতিবেদক : রাজধানীর শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে বহির্গামী যাত্রীর জুতায় বিশেষ কায়দায় লুকানো বিপুল সৌদি রিয়াল ও মালয়েশিয়ান রিংগিত উদ্ধার করা হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে ওই যাত্রীকে।

১৬ ফেব্রুয়ারি, শুক্রবার দিবাগত রাতে কামরুল ইসলাম নামের ওই যাত্রীকে গ্রেফতার করা হয়।

কামরুল ইসলামের বাড়ি মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলায়। তার পাসপোর্ট নম্বর বিএন ০১৯০২৩৭।

শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক মইনুল ইসলাম খান জানান, ওডি-১৬৫ নম্বর ফ্লাইটে করে ঢাকা থেকে মালয়েশিয়া যাওয়ার কথা ছিল কামরুলের। শুক্রবার রাত পৌনে ১২টার দিকে তার পাসপোর্ট পরীক্ষা করে দেখা যায়, তিনি চলতি বছরের জানুয়ারি ও ফেব্রুয়ারিতে চারবার ও গত বছর ৩৩ বার বিদেশ গমন করেছেন।
জিজ্ঞাসাবাদ করে জানা যায়, তিনি বাংলাদেশ থেকে মুদ্রা পাচার করে মালয়েশিয়ায় বিক্রি করেন। সেখান থেকে দেশে আসার সময় ল্যাপটপ, কসমেটিকস, সিগারেটের মতো পণ্য নিয়ে আসার উদ্দেশ্যে মুদ্রাগুলো অবৈধভাবে বহন করছিলেন। ইতোপূর্বে তিনি এভাবে ১০ থেকে ১১ বার মুদ্রা বহন করেছিলেন।

যেভাবে গ্রেফতার

মইনুলের ভাষ্য, শুল্ক গোয়েন্দারা গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ওই যাত্রীকে আগে থেকেই নজরদারিতে রেখেছিলেন। ইমিগ্রেশন পরবর্তী ৮ নম্বর বোর্ডিং গেটের মাধ্যমে বোর্ডিং সম্পন্ন করলে শুল্ক গোয়েন্দারা তার কাছে কোনো বৈদেশিক মুদ্রা আছে কি না, তা জানতে চান। জবাবে তিনি না থাকার কথা জানান। পরবর্তী সময়ে তার দেহ তল্লাশি করে জুতার ভেতর বিশেষ কায়দায় কাগজে মুড়ানো অবস্থায় বৈদেশিক মুদ্রা পাওয়া যায়।

শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতরের মহাপরিচালক জানান, ব্যাগেজ কাউন্টারে কামরুলকে এনে বিভিন্ন সংস্থার উপস্থিতিতে তার জুতার ভেতর কাগজে মুড়ানো থাকা ৭০ হাজার সৌদি রিয়াল ও ২ হাজার ২০০ মালয়েশিয়ান রিংগিত উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি বৈদেশিক মুদ্রা বহনের বিষয়টি অস্বীকার করে যাচ্ছিলেন। পরে তাকে শাহজালালের কাস্টমস হলে নিয়ে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। সে সময় তিনি বিষয়টি স্বীকার করেন।

মহাপরিচালক মইনুল জানান, বাংলাদেশি টাকায় এসব মুদ্রার পরিমাণ ১৫ লাখ ৮৬ হাজার ২০০ টাকা। ঘোষণা ছাড়া এসব মুদ্রা বহন ও লুকানোয় বৈদেশিক মুদ্রা নিয়ন্ত্রণ আইন ও শুল্ক আইন ভঙ্গ হয়েছে। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে যাত্রীকে শুল্ক আইন ও অর্থপাচার প্রতিরোধ আইনে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে ।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com