মঙ্গলবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২১, ১১:৫৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ঝিনাইদহে আনু হত্যার ৪ বছর পর রহস্য উদঘাটন করলো সি আই ডি। কালের খবর

ঝিনাইদহে আনু হত্যার ৪ বছর পর রহস্য উদঘাটন করলো সি আই ডি। কালের খবর

মনিরুজ্জামান মনির, শৈলকুপা ঝিনাইদহ-, কালের খবর : ঝিনাইদহের হরিনাকুন্ডু উপজেলার ভালকি গ্রামের আনেয়ার হোসেন আনু হত্যার ৪ বছর পর রহস্য উদঘাটন করে এই হত্যা মামলার ৩ জন আসামিকে গ্রেফতার করে আইনের কাছে সোপর্দ করেছে সি,আই,ডি ঝিনাইদহ শাখা।
জানা গেছে ২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারী মাসের ৩ তারিখে আনোয়ার হোসেন আনু কে হাত পা বেধে জবাই করে ঐ গ্রামের ফাকা মাঠের ভিতর রেখে যাই দূর্বৃত্তরা।ঘটনার পরের দিন ০৪/০২/২০১৬ ইং তারিখে ভিকটিমের স্ত্রী মোছা: বিউটি খাতুন বাদী হয়ে হরিনাকুন্ডু থানায় সন্দিগ্ধ ও অজ্ঞাত আসামিদের বিরুদ্ধে লিখিত এজাহার দায়ের করে। যার মামলা নং০৩.তাং০৪/০২/১৬। থানায় মামলা করার পরে কিছু আসামি ধৃত হলেও রহস্য উদঘাটন করতে ব্যার্থ হন থানা পুলিশ। মামলার তদন্ত করে বিজ্ঞ আদালতে চুড়ান্ত রিপোর্ট(FRT) দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা। বিজ্ঞ আদালত পরে বাদীর নারাজির প্রেক্ষিতে মামলাটি পুনঃতদন্ত করার জন্য দায়িত্ব দেন পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেষ্টিকেশন (পি,বি,আই) এর উপর। কিন্তু পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেষ্টিকেশন (পি,বি,আই) তদন্ত শেষে আবার চুড়ান্ত রিপোর্ট(FRT) দাখিল করেন বিজ্ঞ আদালতের নিকট।
পরিশেষে বিজ্ঞ আদালত বাদীর নারাজীর প্রেক্ষিতে ০৫/০৯/২০১৯ তারিখে পুনঃ মামলার তদন্তভার হস্তান্তর করেন সি,আই,ডি ঝিনাইদহ শাখা বরাবর। সি,আই,ডি‘র তদন্তকারী কর্মকর্তা মামলার তদন্তভার গ্রহন করে গোপনে ও প্রকাশ্যে মামলার তদন্ত পরিচালনা করে মামলার রহস্য উদঘটন সহ মামলার ৩ জন আসামিকে গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতের নিকট সোপর্দ করেছেন।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার এস আই মাসুদ রানা জানান, বিজ্ঞ আদালত সি,আই,ডি বরাবর ০৫/০৯/১৯ তারিখের স্বাক্ষরিত আদেশের মাধ্যমে মামলাটি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য আদেশ দেন। আমি মামলা তদন্তভার পায় ১৯/১২/১৯ তারিখে।আমি মামলার তদন্তকারে গোপনসূত্রে মামলার রহস্য জানতে পারি। মামলার সন্দিগ্ধ আসামিকে ধরার জন্য সোর্স নিয়োগ করি এবং আমি ও এস আই সেলিম রেজা অভিযান চালিয়ে গত ইং১৭/০৬/২০২০ তারিখে এই মামলার সন্দিগ্ধ আসামি সাহেব আলী কে কুষ্টিয়া জেলার ঝাউদিয়া বাজার নামক স্থান থেকে ধৃত করতে সক্ষম হই। ধৃত আসামি সাহেব আলী হত্যার সাথে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করে বিজ্ঞ আদালতের নিকট ১৬৪ ধারার বিধান মতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেছেন। তদন্ত অব্যহত থাকায় তথ্য গোপন রেখেছেন বলে তিনি জানান।
তিনি আরো বলেন ধৃত আসামি সাহেব আলীর বলামতে তার সহযোগি আসামিদ্বয়কে গ্রেফতারের জন্য পুলিশ পরিদর্শক তোফাজ্জেল হোসেন এর নেতৃত্বে বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে (১)শাহিন কবির ঝলক(৩৮),পিতা:মৃত আবুল মিয়া,(২) রাশিদুর ইসলাম (কুটি),(৪৩), পিতা: ইসলাম বিশ্বাস উভয় সাং
-কিছমত ঘোড়াগাছা,থানা: হরিনাকুন্ডু,জেলা ঝিনাইদহ দ্বয়কে তাদের বসতবাড়ীর সামনে পাকা রাসআর উপর হিইতে ধৃত করতে সক্ষম হন। ধৃত আসামিদের বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করিলে বিজ্ঞ আদালত আসামিগনকে জেলহাজতে প্রেরন করেছেন।
এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, শাহিন কবির ঝলক(৩৮),পিতা:মৃত আবুল মিয়া এর বিরুদ্ধে চাদাবাজি,বিষ্ফোরক ও হত্যা মামলা সহ বেশ কিছু মামলা আছে। এলাকাবসি আরো জানান দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন সময় এলাকার মানুষের নিকট চাঁদা দাবী করে এবং ভয়ভীতি দেখিয়ে চাঁদা আদায় করলেও তাদের ভয়ে এলাকায় কেউ পুলিশের কাছে মুখ খুলতে রাজি হন না।তবে তাদের বিরুদ্ধে এলাকার কিছু বসতী মানুষ হরিনাকুন্ডু থানায় সাধারন ডায়েরী করেছেন বলে জানা যায়।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com