শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০২:১৪ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
আগুন নেভানোর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেই যশোরের অধিকাংশ হাসপাতাল ও ক্লিনিকে। কালের খবর তাড়াশ উপজেলায় আবারও ধুম পরেছে পাট ধোয়ার। কালের খবর তাড়াশ উপজেলায় মহেশরৌহালী সরকারী প্রাথমিক বিদ‍্যালয়ে দূরর্নীতির আভিযোগ উঠেছে। কালের খবর গ্রামবাসীর ধাওয়া খেয়ে পালালেন যৌণ হয়রানির অভিযোগে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক সবুর মাষ্টার। কালের খবর পদ্মা সেতুর প্রভাবে যশোরে বিমান যাত্রী কমেছে ৫০ শতাংশ। কালেন খবর জরাজীর্ণ ভবনে ঝুঁকিপূর্ণ পাঠদান, আট শত শিক্ষার্থীর জন্য ৫ শিক্ষক। কালের খবর বাঙালির হৃদয় থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম কোন অপশক্তি মুছে ফেলতে পারবেনা : এম এ সালাম। কালের খবর সাভারে সাংবাদিককে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন সাংবাদিকরা। কালের খবর নেপালের কাঠমান্ডুতে আন্তর্জাতিক জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দিলেন সাংবাদিক এম আই ফারুক আহমেদ। কালের খবর দিঘলিয়ার সেনহাটী মহা শ্মশান ঘাট রক্ষায় স্থানীয় এমপি’র পদক্ষেপ। কালের খবর
নবীনগরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একই পরিবারের ৫ জনকে পিটিয়ে জখম। কালের খবর

নবীনগরে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে একই পরিবারের ৫ জনকে পিটিয়ে জখম। কালের খবর

নবীনগর প্রতিনিধি, কালের খবর :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলার পূর্ব শত্রুতার জের ধরে থোল্লাকান্দি গ্রামের নুরুল ইসলাম মিয়া ও তার স্ত্রী আসমা বেগমসহ তার তিন মেয়েকে তার আপন ছোট দুই ভাই জামাল মিয়া, বাবলু মিয়া ও ভাইয়ের ছেলে মোঃ আল আমিন মিয়া পিটিয়ে জখম করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার থোল্লাকান্দি গ্রামে ঘটনাটি ঘটেছে। হামলা ও মারধরের ঘটনায় নুরুল ইসলাম মিয়ার পরিবারের নারীসহ ৫ জন আহত হয়েছে।

ঘটনার খবর পেয়ে সলিমগঞ্জ পুলিশ ক্যাম্পের পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে এলাকাবাসীর সহযোগিতায় আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠায়। এ সময় তার মেয়েদের সাথে থাকা দুইটি স্বর্ণের চেইনসহ লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

এই ঘটনায় নুরুল ইসলাম মিয়ার মেয়ে তাসলিমা আক্তার বাদী হয়ে নবীনগর থানায় লিখিত অভিযোগ করছেন।

আহত হলেন, মৃত মাতু মেম্বারের ছেলে মোঃ নুরুল ইসলাম মিয়া, তার স্ত্রী আসমা বেগম তার মেয়ে তাসলিমা আক্তার, সীমা আক্তার, ছেলের বউ জায়েদা খাতুন। আহতদের চিৎকারে এলাকাবাসী ও পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা পালিয়ে যায়।

আহত নুরুল ইসলাম মিয়া জানান, তারই আপন ছোট ভাই জামাল মিয়ার সাথে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছিল। তারই জের ধরে রবিবার সন্ধ্যায় ইফতারের পরে নিজ বাড়ির উঠানে দুই ভাইয়ের পরিবার বাকবিতান্ডায় জড়িয়ে পরে, একপর্যায় হাতাহাতির সৃষ্টি হয়।

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে তার ভাই বাবলু মিয়া, জামাল মিয়ার পরিবার লোকজন তার আপন ভাতিজারা ৪/৫ জনকে সাথে নিয়ে বাড়ি পৌছেই লাঠি এবং লোহার রড দিয়ে তাকে বেধড়ক পেটাতে থাকে এসময় তাকে বাচাতে তার স্ত্রী আসমা বেগম ও সন্তান, সীমা আক্তার তাসলিমা আক্তার, জায়েদা খাতুন এগিয়ে এলে তাদের উপর পাশবিক নির্যাতন চালায় আপন ভাইয়ের পরিবার লোকজন।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com