শনিবার, ২০ অগাস্ট ২০২২, ০৩:০২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
আগুন নেভানোর পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেই যশোরের অধিকাংশ হাসপাতাল ও ক্লিনিকে। কালের খবর তাড়াশ উপজেলায় আবারও ধুম পরেছে পাট ধোয়ার। কালের খবর তাড়াশ উপজেলায় মহেশরৌহালী সরকারী প্রাথমিক বিদ‍্যালয়ে দূরর্নীতির আভিযোগ উঠেছে। কালের খবর গ্রামবাসীর ধাওয়া খেয়ে পালালেন যৌণ হয়রানির অভিযোগে অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক সবুর মাষ্টার। কালের খবর পদ্মা সেতুর প্রভাবে যশোরে বিমান যাত্রী কমেছে ৫০ শতাংশ। কালেন খবর জরাজীর্ণ ভবনে ঝুঁকিপূর্ণ পাঠদান, আট শত শিক্ষার্থীর জন্য ৫ শিক্ষক। কালের খবর বাঙালির হৃদয় থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম কোন অপশক্তি মুছে ফেলতে পারবেনা : এম এ সালাম। কালের খবর সাভারে সাংবাদিককে হত্যা চেষ্টার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছেন সাংবাদিকরা। কালের খবর নেপালের কাঠমান্ডুতে আন্তর্জাতিক জলবায়ু সম্মেলনে যোগ দিলেন সাংবাদিক এম আই ফারুক আহমেদ। কালের খবর দিঘলিয়ার সেনহাটী মহা শ্মশান ঘাট রক্ষায় স্থানীয় এমপি’র পদক্ষেপ। কালের খবর
সরকারি জমি দখল করে মিল নির্মাণ। কালের খবর

সরকারি জমি দখল করে মিল নির্মাণ। কালের খবর

মো. ওমর ফারুক, ফেনী থেকে, কালের খবর :

ফেনীতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে রামপুরে পৌরসভার ১৭ নং ওয়ার্ডে সরকারের জমি দখল করে অবৈধ ভাবে সম্রাট অটো ডাল মিল নির্মাণ করা হচ্ছে। সরকারি আইন ও নিয়ম নীতির তোয়াক্কা না করে শহরের ইসলামপুর রোডের চাল ব্যবসায়ী হিসেবে পরিচিত হাজী ওবায়দুল হক ও তার ছেলে হাজী তাজ উদ্দীন সম্রাট সরকারি জায়গায় মিল নির্মাণের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন।

ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশনা অমান্য করে গত ১ বছর ধরে সরকারি ও ব্যক্তিমালিকানার প্রায় ১৪০ শতক ভূমিতে মিলের বহুতল ভবন নির্মাণের কাজ চলছে। এ বিষয়ে গত বছরের শুরুতে ফেনী সদর উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) নুরেরজ্জামান চৌধুরী নির্মাণাধীন ডাল কারখানায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় সরকারি জায়গায় ভবন নির্মাণের অভিযোগে জনতা রাইস এজেন্সী ও সম্রাট অটো ফ্লাওয়ার মিলের মালিক ওবায়দুল হকের ১ লাখ টাকা জরিমানা করেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের উপস্থিতিতে সরকারি জায়গা শনাক্ত করে তা লাল কালি দিয়ে চিহ্নিত করা হয়। সরকারি জমিতে স্থায়ীভাবে নির্মিত ডাল মিলের ভবনটি ভেঙ্গে ফেলার নির্দেশনা দেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট। এ সময় ফেনী জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে ৩৩ শতক জায়গা ১ নং খাস খতিয়ানের উল্লেখ করে, যা রামপুর, মৌজা নং: ৯৩, দাগ নং- ৪৭২১ “এটি সরকারি সম্পত্তি, এখানে বে-আইনি অনুপ্রবেশ আইনতঃ দন্ডনীয় অপরাধ” লিখে একটি সাইনবোর্ড টানিয়ে দেয়া হয়। কিন্তু প্রভাবশালী পিতা পুত্র জেলা প্রশাসকের সাইনবোর্ডটি উপড়ে ফেলে দিয়ে ভবন নির্মাণের কাজ চালিয়ে যেতে থাকেন।

ফেনী পৌর ভূমি সহকারী কর্মকর্তা মাঈন উদ্দীন, সদর উপজেলা ভূমি অফিসের সার্ভেয়ার মাছুম বিল্লাহ ও অফিস সহকারি প্রদীপ সরকারি জায়গা জবর দখলের বিরুদ্ধে সাবেক এসিল্যান্ডের ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার কথা নিশ্চিত করে জানান, সরকারিভাবে প্রয়োজনীয় মাপজোকের পর ওবায়দুল হকের নির্মাণাধীন ডাল মিল ও পুকুর পাড় মিলিয়ে ৩৩ শতক খাস খতিয়ানের জায়গা চিহ্নিত করা হয়। এর মধ্যে ১৭ শতক জায়গা জবর দখল করে মিলের ভবন নির্মাণ করা হয়েছে।

অভিযোগের বিষয়ে কথা হয় হাজী ওবায়দুল হকের সাথে। তিনি বলেন সাবেক এসিল্যান্ড নুরেরজ্জামান চৌধুরীর এসব জায়গা সম্পত্তি সম্পর্কে কোন অভিজ্ঞতা ছিল না। তাই সে ভুল করে জরিমানা করেছে। মিল ও দখলে থাকা জায়গায় কোন খাস জমি নেই বলে দাবি করেন ওবায়দুল হক।
তিনি আরো বলেন, তার দখলকৃত খাস জমির ব্যাপারে কোন সরকারি প্রতিষ্ঠান বা কর্মকর্তার সাথে কথা বলতেও নিষেধ করেন। ডিসি, ইউএনও বা এসিল্যান্ড অফিসের সবাই ভুল কথা বলে শুধু তার তথ্যই সঠিক বলে মন্তব্য করেন।
এসব বিষয়ে জানতে চাইলে ফেনী সদর এসিল্যান্ড মৌমিতা দাশ বলেন, সরকারি জায়গায় কারখানা করার কোন নিয়ম নেই। জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলে অবৈধ স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলার উদ্যোগ নেয়া হবে।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com