মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১, ০৫:৫৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ, তদন্ত করছে দুদক ও মাউশি। কালের খবর তাড়াশে সেচ্ছাসেবকলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত। কালের খবর যশোর সদরে ইউপি নির্বাচন ৫ জানুয়ারি। কালের খবর কুমড়া বড়ি তৈরি করতে ব‍্যস্ত তাড়াশের কারিগররা। কালের খবর বাঘারপাড়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় চেয়ারম্যান প্রর্থীসহ আহত ২০-অফিস ভাংচুর। কালের খবর যশোর সদর হাসপাতালে দালালদের কাছে জিম্মি রোগীরা। কালের খবর উৎপাদনে নতুন ‘দেশি মুরগি’, ৮ সপ্তাহে হবে এক কেজি। কালের খবর ইউপি নির্বাচনে শাহজাদপুরের ১০ ইউনিয়নে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা। কালের খবর যশোরের শার্শায় শোকজের জবাবের আগেই যুবলীগ নেতা বহিষ্কার! কালের খবর জাতীয় শ্রমিক লীগের উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মন্টুর প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত। কালের খবর
বাঞ্ছারামপুরে মার পরকীয়ার জ্বালা মেটাতে শিশুপুত্রকে গলাটিপে হত্যা। কালের খবর

বাঞ্ছারামপুরে মার পরকীয়ার জ্বালা মেটাতে শিশুপুত্রকে গলাটিপে হত্যা। কালের খবর

বাঞ্ছারামপুর (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি, কালের খবর : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলায় আড়াই বছরের শিশুপুত্র রাফিকে গলাটিপে হত্যা করার কথা স্বীকার করেছে মা।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিদিয়েছেন মা ছেনোয়ারা বেগম।

জড়িত সন্দেহে শিশুটির মাকে আটক করে আদালতে হাজির করলে ঘটনার সত্যতা বেরিয়ে আসে।

কিন্তু কী কারণে শিশু সন্তানকে হত্যা করেছে তা বলেনি মা ছানোয়ারা। তবে হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে কেঁদে ফেলেন ঘাতক মা।

এই ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ব্যাপক তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। সবার প্রশ্ন, মা হয়ে সন্তানকে হত্যা করে কীভাবে?

নিহত রাফি বাঞ্ছারামপুর উপজেলার ভেলানগর গ্রামের সৌদিআরব প্রবাসী ফারুক মিয়ার ছেলে।

গত বুধবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে উপজেলার রূপসদী গ্রামের বাড়িয়াদহ বিলের কচুরিপানার নিচ থেকে রাফির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

হত্যার পরে শিশুটির মা ছেনোয়ারা বেগম অসুস্থতার ভান ধরলে পুলিশ হেফাজতে চিকিৎসা দেয়ার জন্য বাঞ্ছারামপুর সরকারি হাসাপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। পরে বৃহস্পতিবার সুস্থ করে তাকে থানায় নেয়া হয়।

এলাকাবাসী ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, বাঞ্ছারামপুর উপজেলার রূপসদী গ্রামে দক্ষিণ পাড়ায় বাবার বাড়িতে দুই সন্তান নিয়ে থাকতেন ফারুক মিয়ার স্ত্রী ছেনোয়ারা বেগম। বুধবার ভোর ৫টার দিকে মায়ের সঙ্গে ঘর থেকে বের হয় রাফি। এরপর থেকে শিশুটি নিখোঁজ।

বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুজি করে তার পরিবার। এলাকায় মাইকিংও করা হয়। কিন্তু কোথাও খুঁজে পাওয়া যায়নি।

সকাল সাড়ে ৯টার দিকে গ্রামবাসী বাড়ি থেকে ৫০০ গজ দূরে বাড়িয়াদহ বিলের কচুরিপানার নিচে রাফির লাশ দেখতে পায়। খবর পেয়ে তার নানা সাগর মিয়া ঘটনাস্থলে গিয়ে রাফির লাশ সনাক্ত করেন।

এলাকাবাসীর ধারণা, ছেনোয়ারা হয়তো পরকীয়ায় জড়িত। তাই এমন নৃশংস হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছেন।

বাঞ্ছারামপুর মডেল থানার ওসি সালাহ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, শিশুটির মা আদালতে নিজে হত্যার কথা স্বীকার করেছেন।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com