শুক্রবার, ০৫ অগাস্ট ২০২২, ০৬:৩৩ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বাঘারপাড়ায় নতুন উপজেলা নির্বাহী অফিসার সৈয়দ জাকির হাসান। কালের খবর বিএমএসএফ ঢাকা জেলার সদস্য গোলাম রাব্বানীর মরদেহ সোনারগাঁওয়ে উদ্বার। কালের খবর মাদকসেবিদের উৎপাত ঠেকাতে আখাউড়ায় তল্লাশি চৌকি বসছে। কালের খবর কুমিল্লায় সাংবাদিক জিতুকে হত্যার হুমকি, বাসায় প্রবেশ করে গুলিবর্ষণ। কালের খবর চট্টগ্রামে বিনা নোটিশে শতশত স্থাপনা ধ্বংস বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন জনজীবন ব্যাহত। কালের খবর দেবিদ্বারে ৩৩ টি প্রাইভেট হাসপাতাল- ডায়োগনেষ্টিক সেন্টারের ১৭ টি পরিদর্শন। কালের খবর মিরপুরের দারুসসালাম থানার এসআই রেজাউল করিম ও তার সোর্স ২০ পিস ইয়াবা দিয়ে ইমরানকে ফাঁসানোর অভিযোগ। কালের খবর সামান্য বৃষ্টিতেই ডেমরাসহ বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীসহ পথচারী ডেমরার সারুলিয়া বাজারে ইজারাদার ছাত্রলীগ নেতা আরাফাত রহমান সুজনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ চলনবিলে খাল বিল শুকিয়ে নেমে এসেছে বিপর্যয়। কালের খবর
‘সরকারকে জিম্মি করে ভারত-চীন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে বাধ্য করছে’। কালের খবর

‘সরকারকে জিম্মি করে ভারত-চীন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে বাধ্য করছে’। কালের খবর

কালের খবর রিপোর্ট :

২০৩০ সালের মধ্যে দেশের সব কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বন্ধের আহ্বান জানিয়েছে টিআইবি। ভারত ও চীন বাংলাদেশ সরকারকে জিম্মি করে এ ধরনের বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনে বাধ্য করছে বলেও মন্তব্য করেছেন প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান। গতকাল প্রেস ক্লাবের সামনে এক প্রতিবাদ র‌্যালিতে তিনি এ মন্তব্য করেন। ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, চীন ও ভারত কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন থেকে সরে গেছে। অথচ বাংলাদেশে এসব প্রকল্প বাস্তবায়নে তারা সরকারকে জিম্মি করছে। চীন, ভারত এবং আন্তর্জাতিক কয়লাভিত্তিক গ্রুপদের চক্রান্ত থেকে বের হয়ে আসার জন্য তিনি সরকার ও বিনিয়োগকারীদের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, আমরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি বৈশ্বিক শত্রুর কারণে। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের মাধ্যমে আমরা জলবায়ু পরিবর্তনে নেতিবাচক অবদান রাখছি। এটা আমাদের জন্য অত্যন্ত বিব্রতকর। প্যারিস চুক্তি বাস্তবায়নের উদ্যোগের অংশ হিসেবে ২০৩০ সালের মধ্যে পাঁচ শতাংশ কার্বন নিঃসরণ কমানোর প্রতিশ্রুুতি দিয়েছে বাংলদেশ। টিআইবি মনে করে, রামপাল, মাতারবাড়ি, পায়রা, ট্যাংরাগিরির মতো বড় কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্প ওই চুক্তির সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়।

কর্মসূচিতে বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার সীমিত করা ও বৈশ্বিক তাপমাত্রা বৃদ্ধির হার সর্বোচ্চ দুই ডিগ্রি সেলসিয়াসে রাখার জন্য কয়েকটি সুনির্দিষ্ট দাবি তুলে ধরা হয়। এর মধ্যে কার্বন নিঃসরণ কমাতে শিল্পোন্নত দেশগুলোকে সুনির্দিষ্ট প্রতিশ্রুতি প্রদান করা এবং শিল্পোন্নত দেশগুলোতে তেল, কয়লা এবং গ্যাসভিত্তিক পাওয়ার প্ল্যান্ট কার্যক্রম দ্রুততার সঙ্গে বন্ধ করা উল্লেখযোগ্য। র‌্যালিতে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, পরিবেশ আন্দোলনকারী ও পরিবেশ বিষয়ক বিভিন্ন সংগঠনের কর্মীরা অংশ নেন।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com