সোমবার, ১৬ মে ২০২২, ০৩:৩৭ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কুমিল্লায় নৌকার কাণ্ডারি শীর্ষ মাদক কারবারি রুহুল আমিন রিফাত। কালের খবর ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় পূর্বশত্রুতার জেরে বসতঘর পোড়ানোর অভিযোগ। কালের খবর নবীনগরের সলিমগঞ্জ বাজারের সভাপতি এস এম বাদলের বাড়ি থেকে চোরাই মোটরসাইকেল সহ ৪ চোরাকারবারি আটক। কালের খবর ভুয়া ট্রাভেলস এজেন্সির নতুন প্রতারণা। কালের খবর মাদারীপুরের টেকেরহাটে সড়ক দূর্ঘটনায় দাদা নাতি নিহত ২, গুরুতর আহত ১। কালের খবর ল’ রিপোর্টার্স ফোরামের নেতৃত্বে আশুতোষ-দিদার-সরোয়ার। কালের খবর বাস যাত্রীদের প্রাণ বাঁচানো সেই ট্রাফিক পুলিশদের পুরস্কৃত করেন ডিএমপি কমিশনার। কালের খবর ড.ওয়াজেদ মিয়ার ১৩তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত। কালের খবর ‘কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ সাধারন মানুষের জন্য ছিলেন নিবেদিত প্রাণ’: নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী। কালের খবর নবীনগরে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় সাবেক এমপির জানাজা অনুষ্ঠিত
ভিক্ষা করে এক মাসে ২৩ লাখ টাকা আয় করেছেন এক ভিক্ষুক!। কালের খবর

ভিক্ষা করে এক মাসে ২৩ লাখ টাকা আয় করেছেন এক ভিক্ষুক!। কালের খবর

কালের খবর ডেস্ক  :

ভিক্ষা করে এক মাসে ২৩ লাখ টাকা আয় করেছেন এক ভিক্ষুক!
গত ৪ মে দুবাইয়ে এক ভিক্ষাবিরোধী সমাবেশে এ কথা জানায় দেশটির পুলিশ।
সম্প্রতি সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই শহরে নবজাতক নিয়ে ভিক্ষা করার সময় এক নারীকে গ্রেফতার করে দেশটির পুলিশ।

এর পরই বেরিয়ে আসে এসব চাঞ্চল্যকর তথ্য।

দুবাই পুলিশের কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার আবদুল হামিদ আবদুল্লাহ আল হাসিমি বলেন, ওই ভিক্ষুক আরব আমিরাতের বাসিন্দা নন। কোনো পর্যটন কোম্পানির মাধ্যমে ভ্রমণ ভিসায় দুবাইতে এসে ভিক্ষাবৃত্তিতে যুক্ত হন তিনি। গত এক মাসে তিনি ভিক্ষা করে ১ লাখ দিরহাম (বাংলাদেশি মুদ্রায় ২৩ লাখ টাকা) আয় করেছেন।

এ সময় আল হাসিমি বলেন, টুরিস্ট হয়ে দুবাই এসে ভিক্ষা করছে এমন ব্যক্তি ধরা পড়লে যে প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তিনি এসেছেন তার ২ হাজার দিরহাম জরিমানা করা হবে। এই কাজের পুনরাবৃত্তি হলে ওই প্রতিষ্ঠানকে কালো তালিকাভুক্ত করা হবে।

বিভিন্ন দেশ থেকে দুবাই এসে বেশ কিছু মানুষ এমন ভিক্ষাবৃত্তিতে নেমেছেন জানিয়ে হাসিমি আরও বলেন, শুধু এই ব্যক্তিই না, সম্প্রতি ভিক্ষা করে মোটা অংকের অর্থ আয় করা এক নারীকে গ্রেফতারর করছি আমরা। তিনি এ পেশায় বেশি অর্থ উপার্জন করতে এক শিশু ও এক নবজাতককে ব্যবহার করেছিলেন।

উল্লেখ্য, রমজানে দুবাইয়ে ভিক্ষুকের সংখ্যা বেড়ে যায়। এ সময় তারা ধর্মীয় অনুভূতিকে কাজে লাগিয়ে ভিক্ষা করে থাকে। তাই বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ করতে প্রতি রমজানেই মাঠে নামে দেশটির পুলিশ।

দুবাই পুলিশের বরাত দিয়ে এ বিষয়ে একটি পরিসংখ্যান দিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম খালিজ টাইমস।

সেখানে বলা হয়েছে, ২০১৮ সালে দুবাই থেকে গ্রেফতার হয় ২৪৩ জন ভিক্ষুক। ২০১৭, ২০১৬ ও ২০১৫ সালে এই সংখ্যা ছিলো ৬৫৩, ১ হাজার ২১ ও ১ হাজার ৪০৫। সে হিসাবে দুবাইয়ে ভিক্ষুকের সংখ্যা কমে আসছে।

গ্রেফতারের কারণেই ভিক্ষুকের সংখ্যা কমে আসছে বলে অভিমত দিয়েছেন ব্রিগেডিয়ার আবদুল হামিদ আবদুল্লাহ আল হাসিমি।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com