বৃহস্পতিবার, ০৪ অগাস্ট ২০২২, ১০:৩৫ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কুমিল্লায় সাংবাদিক জিতুকে হত্যার হুমকি, বাসায় প্রবেশ করে গুলিবর্ষণ। কালের খবর চট্টগ্রামে বিনা নোটিশে শতশত স্থাপনা ধ্বংস বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন জনজীবন ব্যাহত। কালের খবর দেবিদ্বারে ৩৩ টি প্রাইভেট হাসপাতাল- ডায়োগনেষ্টিক সেন্টারের ১৭ টি পরিদর্শন। কালের খবর মিরপুরের দারুসসালাম থানার এসআই রেজাউল করিম ও তার সোর্স ২০ পিস ইয়াবা দিয়ে ইমরানকে ফাঁসানোর অভিযোগ। কালের খবর সামান্য বৃষ্টিতেই ডেমরাসহ বিভিন্ন এলাকায় জলাবদ্ধতা, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীসহ পথচারী ডেমরার সারুলিয়া বাজারে ইজারাদার ছাত্রলীগ নেতা আরাফাত রহমান সুজনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির অভিযোগ চলনবিলে খাল বিল শুকিয়ে নেমে এসেছে বিপর্যয়। কালের খবর ঢাকায় ৯ ফ্ল্যাট ২ প্লট পাসপোর্ট অধিদপ্তরের পরিচালকের রাজশাহীর ভদ্রায় ডিসির অনুমোদন নিয়ে চলছে পুকুর ভরাট সিদ্ধিরগঞ্জে দাবিকৃত চাঁদা না পেয়ে ব্যবসায়ীকে হত্যা করে লাশ গুমের হুমকি, থানায় অভিযোগ। কালের খবর
স্বপ্নের পদ্মা সেতু দেখা হলো না শিশু নাসিমের। কালের খবর

স্বপ্নের পদ্মা সেতু দেখা হলো না শিশু নাসিমের। কালের খবর

  • ডেমরা (ঢাকা) প্রতিনিধ, কালের খবর :

স্বপ্নের পদ্মা সেতু দেখা হলো না ডেমরার ৫ বছরের শিশু মো. নাসিমের। বাবার হাত ছুটে গিয়ে নদীতে ডুবে মারা যায় শিশুটি। কাঁদতে কাঁদতে তার বাবা বলেন- কীভাবে যে হাত থেকে ছুটে গেল আমার কলিজার টুকরা।

শনিবার দুপুরে পদ্মা সেতু সংলগ্ন নদীতে বাবা বাবুলসহ বড়ভাই ও অন্য বাচ্চাদের সঙ্গে গোসল করতে নেমে পানিতে ডুবে মৃত্যু হয় নাসিমের।

শনিবার বিকালে তার লাশ ডেমরায় আনার পর নিয়মকানুন শেষে ওই রাতেই ডেমরা কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়।

নাসিমের বাড়ি ডেমরার উত্তর বাজার ব্রিজসংলগ্ন এলাকায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, পদ্মা সেতুর উদ্বোধন দেখতে ওই সেতু সংলগ্ন হলুদিয়া গ্রামে চাচাতো বোনের বাড়িতে গত শুক্রবার বাবা বাবুল, চাচা কবির ও তার দুই বছরের আপন বড়ভাই নাফিসের সঙ্গে বেড়াতে যায় শিশু নাসিম। শনিবার দুপুরে হলুদিয়া গ্রামে পদ্মা নদীতে বাবা বাবুল তার দুই ছেলে নাফিস ও নাসিমসহ অন্যান্য আত্মীয়ের ৩-৪ জন বাচ্চাদের নিয়ে গোসল করতে নামেন।

এ সময় অন্যান্য বাচ্চাদের খেয়াল করতে গিয়ে অসাবধানতাবশত বাবুলের হাত থেকে নাসিম ছুটে গিয়ে পানিতে ডুবে যায়। এ ঘটনায় অন্তত ১৫ মিনিট পরে নদী থেকে নাসিমের লাশ উদ্ধার করতে সক্ষম হন তার বাবা।

কান্নাভরা কন্ঠে মৃতের বাবা বাবুল জানান, কীভাবে যে আমার হাত থেকে ছুটে গেল আমার কলিজার টুকরা নাসিম আমি টেরই পেলাম না। ছেলে হারানোর এ কষ্ট আমি কীভাবে সইব বুঝতে পারছি না। আমি নিজেকে নিজে ক্ষমা করতে পারছি না।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com