বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১, ০৮:৪১ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ, তদন্ত করছে দুদক ও মাউশি। কালের খবর তাড়াশে সেচ্ছাসেবকলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত। কালের খবর যশোর সদরে ইউপি নির্বাচন ৫ জানুয়ারি। কালের খবর কুমড়া বড়ি তৈরি করতে ব‍্যস্ত তাড়াশের কারিগররা। কালের খবর বাঘারপাড়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় চেয়ারম্যান প্রর্থীসহ আহত ২০-অফিস ভাংচুর। কালের খবর যশোর সদর হাসপাতালে দালালদের কাছে জিম্মি রোগীরা। কালের খবর উৎপাদনে নতুন ‘দেশি মুরগি’, ৮ সপ্তাহে হবে এক কেজি। কালের খবর ইউপি নির্বাচনে শাহজাদপুরের ১০ ইউনিয়নে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা। কালের খবর যশোরের শার্শায় শোকজের জবাবের আগেই যুবলীগ নেতা বহিষ্কার! কালের খবর জাতীয় শ্রমিক লীগের উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মন্টুর প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত। কালের খবর
ডাব বিক্রি করে যিনি করছেন অনুপম সমাজসেবা

ডাব বিক্রি করে যিনি করছেন অনুপম সমাজসেবা

আবদুল্লাহ তামিম

ডাব বিক্রি করে যিনি করছেন অনুপম সমাজসেবা

গ্রীষ্মের কাঠফাটা দুপুরে, প্রচণ্ড গরমে শরীর যখন ক্লান্ত, খুব দ্রুত প্রশান্তি আনতে খুলনার নিউমাকের্টের ১নং গেটে ছুটে যায় অনেকে। মজিবর চাচা ভ্যানে করে ডাব বিক্রি করেন সেখানটায়। মুখে পানের রং মাখা মিষ্টি হাসি নিয়ে বসে থাকেন তিনি। ভ্যানে ডাবের ছড়ি। পাশে ছোট্ট একটি সাইনবোর্ড। সেখানে লেখা রোজাদারের জন্য ৫ টাকা ছাড়, রোগীর জন্য ৫ টাকা ছাড়, রমজান মাসে সবার জন্য ৫ টাকা ছাড়, অসহায়দের জন্য ২০ টাকায় ডাব।

এভাবেই রোজাদার আর অসহায়দের সেবা করে যাচ্ছেন দীর্ঘদিন। কথা বলেছিলাম মজিবর চাচার সঙ্গে। তিনি বলেন, স্বাধীনতার আগ থেকেই আমি ডাব বিক্রি করি। আটানা করে লঞ্চে লঞ্চে ডাব বেচতাম তখন। স্বাধীনতা দেখলাম, কতদিন পাড় হয়ে গেল, এখন আমি ভ্যানে করে ডাব বিক্রি করি। আল্লাহ অনেক অনেক ভালো রেখেছেন।

তিন মেয়ে এক ছেলের সংসার। ছেলেটাকে মাদরাসায় দিয়েছিলাম, ২৪ পাড়া মুখস্থ করেছে। পড়া মনে রাখতে পারে না তাই মাদরাসা থেকে চইল্লা আসলো। তারে একটা জাহাজে চাকরি দিয়া দিমু। কাজ শিখবো। কাজ করে খাইব। মেয়েরা ভালো আছে। পড়াশোনা করে। সব মিলাইয়া আল্লাহ অনেক ভালা রাখছে।

জিজ্ঞেস করলাম, আপনি দীর্ঘদিন ধরে রোজাদার আর অসহায়দের অল্প দামে ডাব বিক্রি করছেন, কী কারণ? বাবার কথা মনে করে ভাঙা গলায় তিনি বললেন, বাবা ছোট থাকতেই মারা যান। মরার আগে মোরে বলছিলো নিঃস্বার্থভাবে মানুষের সেবা করে যাবি। অসহায়দের যথা সম্ভব পাশে দাঁড়াবি। তাই আমি যেহেতু ডাব বিক্রি করি, এটাতে মানুষের সেবা দাম কমানো ছাড়া আর কীভাবে করুম। তাই অসহায়দের জন্য ২০ টাকায় ডাব বিক্রি করি।

আপনার লস হয় না? জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, না আমার লস হয় না। আল্লাহ আমাকে বরকত দেন। আমি শান্তি পাই।

রমজান মাসে রোজাদারদের জন্য কত টাকায় দেন? তিনি বলেন, এই তো যখন আমি কমে কিনতে পারি আমার কেনা দাম থেকে ৫ টাকা রেখে কমিয়ে দেই। ৫০ টাকায় কিনলে রোজাদারকে ৫৫ টাকায় দিয়ে দেই। আর অন্যদের কাছে ৬৫ টাকা ৭০ টাকা বিক্রি করি।

প্রসঙ্গত, ডাব সম্পূর্ণরূপে একটি প্রাকৃতিক পানীয়। এতে কোনো কৃত্রিম রং, প্রিজারভেটিভ, ফ্লেভার- এর কিছুই থাকে না। তাই বাজারে যত কৃত্রিম পানীয় আছে, তার তুলনায় ডাবের পানি সেরা। মাটির গুণাগুণের ওপর ভিত্তি করে ডাবের পানির স্বাদ বিভিন্ন রকমের হয়ে থাকে। ভারতের ডাবের পানি যেমন বেশ মিষ্টি হয়, তেমনি বাংলাদেশের ডাবের পানি বেশ মিষ্টি ও হালকা নোনতা স্বাদের হয়ে থাকে। আবার কোনো কোনো দেশের ডাবের পানি পানসে হয়।

ডাবের পানি অত্যন্ত উপকারী ও জনপ্রিয় একটি পানীয়। বিভিন্ন প্রাকৃতিক এনজাইম ও খনিজ উপাদানে ভরপুর এ পানীয়। ১০০ মিলি ডাবের পানিতে থাকে ১৮ ক্যালরি, ৪ মিলিগ্রাম কার্বোহাইড্রেট, ১০৫ মিলিগ্রাম সোডিয়াম, ২০৫ মিলিগ্রাম পটাশিয়াম, ২.৬ মিলিগ্রাম সুগার, ২.৪ মিলিগ্রাম ভিটামিন সি, ২৪ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম, ০.৩ মিলিগ্রাম আয়রন ও ২৫ মিলিগ্রাম ম্যাগনেশিয়াম।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com