বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৪৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
গাছে গাছে আমের মুকুল, মৌ মৌ ঘ্রাণে ব্যকুল মানুষ। কালের খবর নির্মাণ শ্রমিকদের কর্মস্থলে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানাল ইনসাব। কালের খবর ভাষা দিবস পদক প্রদান গুণীজন সম্মাননা ও লেখক সম্মেলন ২০২৪। কালের খবর মুরাদনগরে কৃষি কার্যক্রম পরিদর্শনে মার্কিন দূতাবাস প্রতিনিধি। কালের খবর কুষ্টিয়ায় বাজার থেকে ক্রয় করা মাংসে মিলল পুরুষাঙ্গ ! কালের খবর চট্টগ্রামের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে অতিথি ডটকমের জমকালো ডায়মন্ড সেলিব্রেশন প্রোগ্রাম। কালের খবর শাহজাদপুরে সরিষা আনতে মাঠে যাচ্ছিলেন হাবিব, হঠাৎ বজ্রপাত। কালের খবর চোর চক্রের তিন সদস্য আটক দুটি মটরসাইকেল উদ্ধার কালের খবর টেকনাফে লক্ষাধিক ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক। কালের খবর একুশের বই মেলায় রাজু আহমেদ মোবারকের ‘সত্য সুন্দরের সন্ধানে’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন। কালের খবর
বেনাপোল দিয়ে স্থলপথের পাশাপাশি রেল পথেও বেড়েছে বাণিজ্য । কালের খবর

বেনাপোল দিয়ে স্থলপথের পাশাপাশি রেল পথেও বেড়েছে বাণিজ্য । কালের খবর

 মসিয়ার রহমান কাজল, বেনাপোল, কালের খবর :
বেনাপোল বন্দর ও পেট্রাপোল দিয়ে স্থল পথের পাশাপাশি রেল পথেও আমদানি বাণিজ্য বেড়েছে।
এতে স্বস্তি ফিরেছে ব্যবসায়ীদের মধ্যে।সরকারেরও রাজস্ব আয় বেড়েছে।বেনাপোল বন্দর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
করোনা সংক্রমণরোধে গত ২২ মার্চ রেলও স্থলপথে পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে বেনাপোল বন্দরের সঙ্গে আমদানি রফতানি বাণিজ্য বন্ধ করে দেয় ভারত।
বাণিজ্য বন্ধের ফলে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশের হাজার হাজার ট্রাক পণ্য নিয়ে আটকা পড়ে।
পরবর্তীতে করোনা পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলে দেশের অন্যান্য বন্দর দিয়ে আমদানি রফতানি সচল হলেও এ পথে ভারতের সঙ্গে বাণিজ্য সচলে নানান প্রতিবিন্ধকতা দেখা দেয়।
ব্যবসায়ীরা ক্ষতির বিষয়টি উভয় দেশের বন্দর কর্তৃপক্ষকে জানায়, তাতেও সচল হয়নি বাণিজ্য।
এক পর্যায়ে রেল কর্তৃপক্ষ, কাস্টমস, বন্দর ও ব্যবসায়ীদের যৌথ উদ্যােগে বিকল্পভাবে বাণিজ্য সচলে রেলপথে পার্সেল ভ্যানে দুই দেশের মধ্যে আমদানি বাণিজ্য চুক্তি হয়।
বেনাপোল ও পেট্রাপোল বন্দরের মধ্যে স্থল পথেরে পাশাপাশি রেল পথে কার্গাে রেল, সাইডডোর কার্গাে রেল এবং পার্সেল ভ্যানে সব ধরনের পণ্যের আমদানি বাণিজ্য শুরু হয়েছে বর্তমান।
এতে ব্যবসায়ীদের যেমন দুর্ভােগ কমেছে,তেমনি বাণিজ্যে গতি বাড়ায় সরকারের ও রাজস্ব আয় বেড়েছে।
বেনাপোল বন্দরের আমদানি রফতানি সমিতির সভাপতি মহসিন মিলন জানান, স্থলপথে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে অবরোধ,হরতাল, শ্রমিক অসন্তোষ সহ বভিন্নি প্রতিবন্ধকতায় পণ্য পরিবহন করতে না পরে ব্যবসায়ীরা প্রায়ই লোকশানের কবলে পড়তেন। ভারত থেকে পণ্য আমদানি করতে অনেক ক্ষেত্রে এক মাসের ও অধিক সময় লেগে যেত। রেলপথে সব ধরনের পণ্যের আমদানি করতে পারায় এখন আর সে সমস্যা নেই।
বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ এ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি মফিজুর রহমান সুজন জানান, করোনার অজুহাত দেখিয়ে ভারতের পেট্রাপোলের এক শ্রেণির ব্যবসায়ীরা সিন্ডিকেট করে মাসের পর মাস ট্রাক আটকে রেখে ফায়দা লুটছিলো। এমন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে শুরু হয় রেলপথে আমদানি বাণিজ্য। এভাবে চলতে থাকলে আশা করা যাচ্ছে চলতি অর্থ বছরে প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা সরকারের রাজস্ব আসবে।
বেনাপোল বন্দরের উপ-পরিচালক মামুন কবীরতরফদার জানান, স্থলপথের পাশাপাশি আমদানি কারকরা রেলপথে পণ্য আমদানি করায় বেনাপোলে যানজট কমেছে,বেডে়ছে আমদানি।সরকারও বেশি রাজস্ব পাচ্ছে।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com