সোমবার, ৩০ জানুয়ারী ২০২৩, ০২:১৯ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
মুরাদনগরে জমকালো আয়োজনে বীর মুক্তিযোদ্ধা সন্তান ফাউন্ডেশনের কার্যালয় উদ্বোধন। কালের খবর নবীনগরে নূরজাহানপুর আশ্রয়ণ প্রকল্পের ৬টি ঘর বিক্রির অভিযোগ। কালের খবর সখীপুরে স্বামী-স্ত্রীর দীর্ঘদিনের কলহের অবসান। কালের খবর এয়ারপোর্টে শুল্ক না দিয়ে বিদেশ থেকে আনা যাবে যে জিনিসগুলো। কালের খবর মুরাদনগরে স্কুল ছাত্রীকে শ্লীলতাহানী করার অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার। কালের খবর ফরিদপুরে মামলার হাজিরা দিয়ে বাড়ি ফেরার পথে কুপিয়ে জখম। কালের খবর প্রধানমন্ত্রীর উপহার সহ, বিভিন্ন ব‍্যক্তি ও প্রতিষ্টানেের শীতবস্ত্র বিতরণ অব‍্যাহত। কালের খবর তাড়াশ উপজেলার মাটি ও আবহাওয়া অনুকূল ভাল থাকায় খিরা চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা। কালের খবর শেখ মনি কিশোর ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০২৩ এর শুভ উদ্বোধন। কালের খবর হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে মুরাদনগরে ইউএনও’র তদন্ত : এলাকায় তোলপাড়। কালের খবর
আগামীকাল ছাত্রলীগের সম্মেলন: অনূর্ধ্ব ২৯ বছরেই বন্ধি ছাত্রলীগ বিতর্কমুক্ত ছাত্রলীগের কমিটি উপহার

আগামীকাল ছাত্রলীগের সম্মেলন: অনূর্ধ্ব ২৯ বছরেই বন্ধি ছাত্রলীগ বিতর্কমুক্ত ছাত্রলীগের কমিটি উপহার

আগামীকাল ছাত্রলীগের সম্মেলন: অনূর্ধ্ব ২৯ বছরেই বন্ধি ছাত্রলীগ
বিতর্কমুক্ত ছাত্রলীগের কমিটি উপহার
দিতে খোঁজখবর নিচ্ছে গোয়েন্দারা
স্টাফ রিপোর্টার
আওয়ামী লীগের ভ্রাতৃপ্রতিম সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের ৩০তম জাতীয় সম্মেলন আগামী মঙ্গলবার ৬ ডিসেম্বর। এখান থেকেই নতুন দায়িত্ব দেওয়া হবে। এজন্য গত কয়েকটি সম্মেলনের মতো এবারও বয়সসীমা অনূর্ধ্ব ২৯ বছর। এই বয়সসীমার মধ্যেই নেওয়া হচ্ছে প্রার্থীদের খোঁজখবর। তাদের শিক্ষাগত যোগ্যতা, নেতৃত্বের গুণাবলি, পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগের সঙ্গে জড়িত কি না-এসব দেখা হচ্ছে। নেতৃত্ব নির্বাচনে বিতর্কমুক্তদের বেছে নেওয়া হবে। এই যোগ্যতায় আলোচনায় আছেন প্রায় এক ডজন পদপ্রত্যাশী। তবে ছাত্রলীগের শীর্ষ পদে আবেদনপত্র জমা দেওয়ার মধ্যে তিন নেতা বয়স জালিয়াতি করেছেন বলে জানা গেছে। যাদের খোঁজখবর নিচ্ছেন গোয়েন্দারা।
জানা যায়, ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্রে সদস্যদের বয়সসীমা রয়েছে অনূর্ধ্ব ২৭ বছর। কিন্তু নিয়মিত সম্মেলন না হওয়ায় গত তিনবার বয়সসীমা দুই বছর বাড়িয়ে অনূর্ধ্ব ২৯ বছর করা হয়। সভাপতি হিসাবে আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক হিসাবে লেখক ভট্টাচার্য দুই বছর ১১ মাস দায়িত্ব পালন করছেন। করোনাভাইরাসের কারণে তারা যথাসময়ে সম্মেলন করতে পরেননি। ফলে এবারের সম্মেলনেও বয়স বাড়ানোর বিষযটি নিয়ে আলোচনা হয়। কিন্তু বৃহস্পতিবার বয়সের ব্যাপারটি অনানুষ্ঠানিকভাবে স্পষ্ট করেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি অন্য নেতাদের জানিয়ে দেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে বয়সের ব্যাপারে তার আলোচনা হয়েছে। এবারও বয়সসীমা হবে ২৯ বছর। এটা বাড়ানো হবে না। অন্যদিকে আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যও দেখা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে। তিনিও বয়সসীমা ও ছাত্রত্বের ব্যাপারে খোঁজ নেন। এ সময় তিনি গত সম্মেলনে ২৯ হওয়া বয়সসীমার প্রতি সমর্থন জানান। বয়সসীমার এ ব্যাপারটি স্পষ্ট হওয়ায় এবার নেতৃত্বের দৌড়ে এগিয়ে আছেন প্রায় এক ডজন পদপ্রত্যাশী। এদের অনেকেই দীর্ঘদিন ধরে রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। অনেকেই ২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে প্রত্যক্ষভাবে মাঠে ছিলেন। এমন প্রার্থীদের মধ্যে আছেন ঢাকা বিভাগ থেকে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী সাইফুল্লা আব্বাছী অনন্ত। ছাত্রলীগের উপ-গণশিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক এবং সদ্য সাবেক ভিপি শহীদ সার্জেন্ট জহুরুল হক হল সংসদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। চট্টগ্রাম বিভাগের শিক্ষা ও পাঠচক্রবিষয়ক সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মাসুদ লিমন। তিনি এর আগে মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং তার আগে একই হলের কর্মসূচি ও পরিকল্পনাবিষয়ক সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। বরিশাল অঞ্চল থেকে আছেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপসম্পাদক সবুর খান কলিন্স ও উপগণশিক্ষাবিষয়ক উপসম্পাদক সোলাইমান ইসলাম মুন্না। সবুর খান কলিন্স সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহসম্পাদক ও ফজলুল হক মুসলিম হলের নাট্য ও বিতর্কবিষয়ক সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। আর সোলাইমান ইসলাম মুন্না ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদের সাধারণ সম্পাদক, জহুরুল হক হলের দপ্তর সম্পাদক এবং তার আগে বরিশাল মহানগরের ১০নং ওয়ার্ডের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পারিবারিকভাবেই তারা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এছাড়া এই অঞ্চলের আরেক প্রার্থী শেখ ইনান বর্তমান ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসাবে দায়িত্বে রয়েছেন। তিনিও সংগঠনটির শীর্ষ পদে লড়ছেন। তবে মাদারীপুর অঞ্চল-ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক খন্দকার জামি উস সানি ও হাজী মুহাম্মদ মহসিন হলের সভাপতি শহিদুল হক শিশির। জামি উস সানি এর আগে বুয়েট ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন। যদিও আবরার হত্যাকাণ্ডের পর বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ রয়েছে। অন্যদিকে, শিশির হল সংসদের সাবেক ভিপি এবং হলের সাবেক ছাত্রলীগের সহসভাপতির দায়িত্ব পালন করেছেন। উভয়ের পরিবারই পারিবারিকভাবে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। খুলনা অঞ্চল-কেন্দ্রীয় মানবসম্পদবিষয়ক সম্পাদক নাহিদ হাসান শাহিন, যিনি সূর্যসেন হল ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের দপ্তর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন। আওয়ামী লীগ পরিবারের সদস্য। এছাড়া একই অঞ্চলের রয়েছেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের উপবিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক খন্দকার আহসান হাবিব। এছাড়া ময়মনসিংহ থেকে রয়েছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় তথ্যপ্রযুক্তিবিষয়ক উপসম্পাদক রাশিদ শাহরিয়ার উদয়। তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহসম্পাদক এবং মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের ত্রাণ ও পুনর্বাসনবিষয়ক সম্পাদক হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। একই অঞ্চলের ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহসম্পাদক রাকিব সিরাজীও শীর্ষ পদের আলোচনায় রয়েছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাইরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আলোচনায় রয়েছেন আল আমিন শেখ। তিনি কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের উপপ্রচার সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। এর বাইরে আরও আছেন সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সহসভাপতি তিলত্তমা শিকদার, মুক্তিযোদ্ধা ও গবেষণাবিষয়ক উপসম্পাদক রনক জাহান রাইন। পারিবারিকভাবেও তারা আওয়ামী লীগ রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।
ছাত্রলীগের নেতৃত্ব নির্বাচনে আঞ্চলিকতার প্রাধান্য থাকেই। সেক্ষেত্রে বৃহত্তর ফরিদপুর, বরিশাল ও খুলনা, চট্টগ্রাম, ময়মনসিংহ ও উত্তরবঙ্গের প্রার্থীদের প্রাধান্য এবারও থাকতে পারে। গত কয়েকটি কমিটির তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এই অঞ্চলের প্রার্থীরাই এগিয়ে থাকেন। বয়স জালিয়াতদের খোঁজে গোয়েন্দারা: ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি এবং সাধারণ সম্পাদক পদে লড়ছেন বয়সসীমার বাইরে থাকা একাধিক প্রার্থী। যারা আগেই সংগঠনটির শীর্ষ পদের জন্য আবেদনপত্র জমা দিয়েছেন।
সূত্র জানায়, তাদের মধ্যে তিনজন প্রার্থীর বয়স সার্টিফিকেট অনুযায়ী ৩০ বছর হওয়ায় তারা বয়স জালিয়াতি করেছেন। এই তিনজনের ব্যাপারে গোয়েন্দা সংস্থাকে জানানো হয়েছে। তারা বিভিন্নভাবে খোঁজখবর নিচ্ছেন। বয়স জালিয়াতির বিষয়টি স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা আছে। যারা এটি করবে, তাদের ব্যাপারে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।
সার্বিক বিষয়ে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, ছাত্রলীগের নেতৃত্ব নির্বাচনে বয়সের ব্যাপারে গঠনতন্ত্রে স্পষ্ট বিধান রয়েছে। বিভিন্ন কারণে সেটি বাড়ানো হয়ে থাকে। গত কয়েকটি সম্মেলনে বয়স ২৯ বছর করা হয়েছে। এছাড়াও প্রার্থীর একাডেমিক কোয়ালিফিকেশন, পারিবারিক ব্যাকগ্রাউন্ড, বিতর্কমুক্ত কি না-এসব ব্যাপারে খোঁজ নেওয়া হবে।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com