সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৭:২৬ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
কোটাবিরোধী আন্দোলন-আবারও রাজনীতির মাঠে ইসমাইল চৌধুরী সম্রাট। কালের খবর চালের দাম আরও বাড়লো, সবজি আলু পেঁয়াজেও অস্বস্তি। কালের খবর খুনি ওসি প্রদীপের হাতে নির্যাতিত সাংবাদিকের আহাজারি। কালের খবর বন্দরে ৬ প্রতারকের বিরুদ্ধে আদালতে চাজশীট দাখিল। কালের খবর মুরাদনগরে মাদক বিরোধী সমাবেশ। কালের খবর সাংবাদিক জুয়েল খন্দকারের বিরুদ্ধে কাউন্সিলর সাহেদ ইকবাল বাবুর মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত। কালের খবর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের ঠিকাদারদের সাথে লিরা গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজ”র মতবিনিময় সভা-সম্পন্ন। কালের খবর গণপূর্তের নির্বাহী প্রকৌশলী আমান উল্লাহ বিরুদ্ধে কাজ না করেই সরকারি বরাদ্দের কোটি কোটি টাকা আত্মসাৎতের অভিযোগ!। কালের খবর স্ত্রীর যৌতুক মামলায়,ব্যাংক কর্মকর্তা রাশেদের শেষ রক্ষা মিলেনি বাকলিয়া থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার। কালের খবর নবীনগর থানা প্রেস ক্লাবের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে কমিটি গঠন, সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মমিনুল হক রুবেল। কালের খবর
অসৌজন্যমূলক আচরণের প্রতিবাদে অনুষ্ঠান বর্জন সাংবাদিকদের। কালের খবর

অসৌজন্যমূলক আচরণের প্রতিবাদে অনুষ্ঠান বর্জন সাংবাদিকদের। কালের খবর

অসৌজন্যমূলক আচরণের প্রতিবাদে খাগড়াছড়িতে নবনির্মিত শিল্পকলা একাডেমি ভবন উদ্বোধনের অনুষ্ঠানটি বর্জন করেছেন জেলায় কর্মরত সাংবাদিকরা। বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) শিশু একাডেমিতে আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা।

জেলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট শাকিল অনুষ্ঠানে কর্মরত সাংবাদিকদের চেয়ার ছেড়ে দিতে বলায় সঙ্গে সঙ্গে সাংবাদিকরা অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন এবং বাইরে এসে প্রতিবাদ জানান। প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবের সহ-সভাপতি মো. জহুরুল আলম, খাগড়াছড়ি প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের মুহাম্মদ, অর্থ সম্পাদক চিংমে মারমা। এছাড়া প্রতিবাদ সভায় সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কানন আচার্য্য, জয়ন্তী দেওয়ান, সমীর মল্লিক, আল মামুন, লিটন ভট্টাচার্য্য রানা, জাফর সবুজসহ অন্যান্য সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় সাংবাদিকরা অভিযোগ করে বলেন, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠানে উপস্থিত থাকার জন্য সাংবাদিকদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের বসার জন্য কোনও আসন রাখা হয়নি। বিষয়টি জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা উষানু চৌধুরীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেও কোনও সুরাহা হয়নি। এক পর্যায়ে প্রতিমন্ত্রীর গণসংযোগ কর্মকর্তা আলমগীরের দৃষ্টি আকর্ষণ করলে তিনি খালি হওয়া প্রথম সারির আসনে সাংবাদিকদেরকে বসান। কিছুক্ষণ পর জেলা প্রশাসনের ম্যাজিস্ট্রেট শাকিল সাংবাদিকদের আসন ছেড়ে দেওয়ার নির্দেশ নিয়ে বলেন, ‘এগুলো সংরক্ষিত (ভিআইপি) আসন, আপনারা উঠে যান’। এ অসৌজন্যমূলক আচরণে সাংবাদিকরা বিব্রত হন এবং প্রতিবাদে অনুষ্ঠানস্থল ত্যাগ করেন।

সাংবাদিকরা আরও বলেন, ওই ম্যাজিস্ট্রেট ক্ষমা না চাইলে ভবিষ্যতে জেলা প্রশাসনের কোনও কর্মসূচিতে সাংবাদিকরা অংশ নেবেন না এবং সংবাদ প্রচার থেকে বিরত থাকবেন।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com