শুক্রবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২২, ১০:৪৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
ডেমরায় একের পর এক অজ্ঞাত লাশ উদ্ধার খুনিরা অধরা , জনমনে আতঙ্ক বাঘারপাড়ায় আমন ধানের চিটা বেশি – ভোলায় ভূমিহীন নেত্রী বকুল হত্যা এবং পুলিশ কর্তৃক মামলা গ্রহন না করার প্রতিবাদে নাগরিক সমাজের সংবাদ সম্মেলন। কালের খবর কুষ্টিয়ায় অবৈধ ভেজাল গুড় তৈরি কারখানায় অভিযানে জেল-জরিমানা। কালের খবর যশোরের মাটিতেই প্রথম উড়েছিল স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা। কালের খবর শাহজাদপুরে মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রস্তুতিমুলক সভা। কালের খবর আগামীকাল ছাত্রলীগের সম্মেলন: অনূর্ধ্ব ২৯ বছরেই বন্ধি ছাত্রলীগ বিতর্কমুক্ত ছাত্রলীগের কমিটি উপহার চলন বিলে পানি যাওয়ার সাথে সাথে আমন কেটেই জমিতে সরিষা বুনছেন কৃষক। কালের খবর নজু মুন্সির বাড়ীতে বেআইনিভাবে হাতে আগ্নেয়াস্ত্রসহ বসতঘরে অনধিকার প্রবেশ করে অতর্কিত হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। কালের খবর স্বাধীনতা বিরোধী শক্তির অপতৎপরতা প্রতিরোধে এবার মাঠে নামছে আওয়ামী মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম লীগ। কালের খবর
শামীমের পরিকল্পনায় অধ্যক্ষ সিরাজের নির্দেশেই নুসরাত রাফিকে আগুন দিয়ে হত্যা। কালের খবর

শামীমের পরিকল্পনায় অধ্যক্ষ সিরাজের নির্দেশেই নুসরাত রাফিকে আগুন দিয়ে হত্যা। কালের খবর

কালের খবর ডেস্ক : ঢাকা- অধ্যক্ষ সিরাজের নির্দেশেই ফেনীর মাদরাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পরিকল্পনা করে আগুন দিয়ে হত্যা করা হয়। জেলে বসেই সে এই নির্দেশ দেয়। আর নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার পরিকল্পনা করেন শাহাদাত হোসেন শামীম।

এই হত্যাকাণ্ডে নিজের সম্পৃক্ততা স্বীকার করে পুলিশকে দেওয়া জবানবন্দিতে এই তথ্য জানায় নুসরাত হত্যা মামলার আসামি নূর উদ্দিন।

শনিবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে রাজধানীর ধানমন্ডিতে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান পিবিআই প্রধান বনোজ কুমার মজুমদার।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, নুসরাত হত্যাকাণ্ডে নিজের সম্পৃক্ততার কথা স্বীকার করেছে গ্রেপ্তারকৃত নুর উদ্দিন। ঘটনাটি পরিকল্পিত বলেও জানিয়েছেন তিনি। জবানবন্দিতে সে জানায়, অপারেশনে চারজন বোরখা পরিহিতের মধ্যে দুই জন ছেলে আর বাকি দুইজন মেয়ে ছিল। তারা সবাই ওই মাদরাসার শিক্ষার্থী।

মিশনে অংশ নেয়া চারজনের মধ্যে ছাত্রলীগ সভাপতি শাহদাত হোসেন শামীমকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আর শম্পা বা চম্পা নামে যে ছিল সে বাইরে এসে বলছিল নুসরাতকে মারছে। সেই শম্পা বা চম্পাও গ্রেপ্তার হয়েছে।

সম্মেলনে পিবিআই আরো জানায়, এ ঘটনায় জড়িত মোট ১৩। এখন পর্যন্ত ৭ জন গ্রেপ্তার হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন- গতরাতে ধরা পড়া শামীম, এস এম সিরাজ উদ দৌলা, নুর উদ্দিন, কাউন্সিলর মাকসুদ আলম, জুবায়ের আহম্মেদ, জাবেদ হোসেন এবং আফছার উদ্দিন। বাকিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, অধ্যক্ষ সিরাজের মুক্তির জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে নূর উদ্দিন ও শামীমরা গত ৪ এপ্রিল স্মারক লিপি দেয়। ওইদিনই তারা জেলখানায় গিয়ে দেখা করে অধ্যক্ষ সিরাজের সঙ্গে। সেখানে সিরাজ নূরকে জিজ্ঞেস করে, তোমরা আমার জন্য কি করেছ? এদিন সিরাজ নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার নির্দেশনা দেয়।

সাংবাদিকদের বনজ কুমার বলেন, ‘ঘটনার দিন আনুমানিক সকাল ৯টা থেকে সাড়ে ৯টায় ঘটনাস্থলে ছিলেন নুর উদ্দিন, শাহাদাত হোসেন শামীম, জাবেদ হোসেন, হাফেজ আবদুল কাদের এবং আরও কয়েকজন।’

তদন্তের স্বার্থে তাদের নাম বলেননি পিবিআইপ্রধান।

তিনি বলেন, ‘যৌন নির্যাতনের মামলা হওয়ায় আলেম সমাজকে হেয় করা হয়েছে- এই ধরনের যুক্তি দিয়ে অধ্যক্ষ সিরাজ জেলে থেকেই তার সাঙ্গপাঙ্গোদের নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে মারার নির্দেশ দেন।’

বনজ কুমার আরও বলেন, ‘নুসরাতকে পুড়িয়ে মারার আরও একটি কারণ আমরা জেনেছি। তা হলো- নুসরাতকে মামলার এজহারভুক্ত তৃতীয় আসামি শাহাদাত প্রেমের প্রস্তাব দিয়েছিল। তবে সে প্রস্তাব নুসরাত ফিরিয়ে দেয়। বিষয়টি মেনে নিতে পারেননি শাহাদাত। মনে মনে প্রচণ্ড ক্ষোভ জন্মে তার। নুরসাতকে পুড়িয়ে মারার পেছনে সেই আক্রোশটাও কাজ করেছে

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com