বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ১২:৪৪ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় বীরমুক্তিযোদ্ধা মুজিবুর মাস্টারের দাফন সম্পন্ন। কালের খবর ফুলবাড়ীতে দায় সাড়া ভাবে চলছে সড়ক সংস্কার কাজ। কালের খবর ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হার সন্ধানের জন্য প্রধানমন্ত্রীর সহায়তা চাইলেন স্ত্রী। কালের খবর জনপ্রিয় অভিনেত্রী পরীমনির সঙ্গে যা ঘটেছিল সে রাতে । কালের খবর কর্মের মূল্যায়ণ করে লাউর ফতেহপুর ইউপি নিবার্চনে দল আমাকে নৌকা প্রতিক দিবে এটা আমার বিশ্বাস :—-হাজি শহিদুল ইসলাম মালু। কালের খবর বঞ্চিতদের মূল্যায়ন ও পরিবারতন্ত্র থেকে বেরিয়ে আসছে আওয়ামী লীগ। কালের খবর কারাবন্দি সাংবাদিকদের মুক্তি দাবি বিএফইউজে ও ডিইউজে’র। কালের খবর ঠাকুরগাঁওয়ের পাউবো ভবনগুলো পরিত্যক্ত অবস্থায় দেখার কেউ নেই। কালের খবর নবীনগরে জননেতা মাহবুবুল আলমের ১৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত শিখরের টানে সীতাকুণ্ড নিজ গ্রামে বৃটেনে নিযুক্ত বাংলাদেশী হাইকমিশনার সাঈদা। কালের খবর
চার বছর ধরে শিকলবন্দি তৌফিক, পুরো পরিবারটাই সমস্যায় জরজরিত…

চার বছর ধরে শিকলবন্দি তৌফিক, পুরো পরিবারটাই সমস্যায় জরজরিত…

কুলাউড়া (মৌলভীবাজার) প্রতিনিধি, কালের খবর : কুলাউড়ায় চার বছর ধরে একটি ঘরে শিকলবন্দি অবস্থায় জীবনযাপন করছেন তৌফিক মিয়া (৩২)। পরিবারের লোকজনের দাবি, তৌফিক মিয়া অপ্রকৃতিস্থ।

কিন্তু চিকিৎসা করার মতো সামর্থ্য তাদের নেই। অন্যের ক্ষতি যাতে না করে সে জন্যই তৌফিককে শিকলবন্দি করে রাখা হয়েছে।
জয়চণ্ডী ইউনিয়নের দক্ষিণ গিয়াসনগর এলাকার বাসিন্দা কারি রমিজ উদ্দিনের (মৃত) দুই ছেলের মধ্যে তৌফিক মিয়া ছোট। তৌফিকের বড় ভাই মোশাহিদ আলী (আয়না মিয়া) জানান, ১১ বছর ধরে বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত তৌফিক। চার বছর আগে তাঁদের বাবা মারা যাওয়ার পর তৌফিক পুরোপুরি অপ্রকৃতিস্থ হয়ে যান। নিজের সামর্থ্য ও প্রতিবেশীদের সাহায্য নিয়ে ছোট ভাইকে অনেক ডাক্তার-কবিরাজ দেখিয়েছেন। কিন্তু টাকার অভাবে তাঁকে ভালোভাবে চিকিৎসা করিয়ে সুস্থ করে তুলতে পারেননি।

বিভিন্ন মসজিদ-মক্তবে চাকরি করে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে কোনোরকমে সংসার চালাচ্ছিলেন কারি রমিজ উদ্দিন। চার বছর আগে মৃত্যু হয়।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে রেখে যান। পরিবারের হাল ধরেন বড় ছেলে মোশাহিদ আলী। দিনমজুরের কাজ করে মা, ভাই, বোন ও স্ত্রী-সন্তান নিয়ে মোশাহিদের সংসার।
মোশাহিদের বাড়িতে গেলে পরিবারের এক করুণ দৃশ্য চোখে পড়ে। আধাপাকা একটি ঘরে শুয়ে আছেন মা, বোন ও ভাই তৌফিক। তৌফিকের পায়ে শিকলবাঁধা। ঠিকমতো খাওয়া-নাওয়া না করায় শরীরে রোগব্যাধি জেঁকে বসেছে।

মোশাহিদ জানান, পাঁচ বছর ধরে তাঁর স্ত্রী অসুস্থ। স্ত্রীর জরায়ুতে সমস্যা ধরা পড়েছে। চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, অস্ত্রোপচার (অপারেশন) করতে হবে। কিন্তু টাকার অভাবে তা করাতে পারেননি। ছয় মাস আগে পুকুরপাড়ে পড়ে ছোট বোন রুলি বেগমের পায়ের গোড়ালি ভেঙে যায়। চিকিৎসা করালেও ভাঙা স্থানটি জোড়া লাগেনি। গত মাসে হঠাৎ বৃদ্ধ মা স্ট্রোক করেন। বর্তমানে পরিবারের প্রায় সবাই অসুস্থ। পরিবারের সদস্যদের জন্য দুই মুঠো খাবার নাকি চিকিৎসার ব্যবস্থা করবেন মোশাহিদ—এই হতাশা কুরে কুরে খাচ্ছে তাঁকে।

সমাজের বিত্তবানরা একটু সুদৃষ্টি দিলে রক্ষা পায় পরিবারটি। কোনো সুহৃদ পরিবারটির পাশে দাঁড়াতে চাইলে ০১৭২৮-৯৯৬৪০১ নম্বরে যোগাযোগ করতে পারেন।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com