বৃহস্পতিবার, ২৬ জানুয়ারী ২০২৩, ০৪:৫২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
শেখ মনি কিশোর ফুটবল টুর্নামেন্ট ২০২৩ এর শুভ উদ্বোধন। কালের খবর হাইকোর্টের নির্দেশ অমান্য করে মুরাদনগরে ইউএনও’র তদন্ত : এলাকায় তোলপাড়। কালের খবর নবীনগরে সাংবাদিকের সাথে পল্লী বিদ্যুৎ ডি জি এম এর অশুভ আচরণে সাংবাদিকদের নিন্দার ক্ষোভ। প্রেমের টানে মেয়ের জামায়কে নিয়ে শ্বাশুড়ি উধাও। কালের খবর কুষ্টিয়ায় আড়াই মাসে সরকারি ধান সংগ্রহ এক ছটাকও হয়নি। কালের খবর সুন্দরগঞ্জে জেলা পরিষদের অর্থায়নে শীতবস্ত্র বিতরণ। কালের খবর আলতাফ মাহমুদকে স্মরণ করেছে শীর্ষ দুই সাংবাদিক সংগঠন। কালের খবর বাঘারপাড়ার ওয়াদীপুর আলিম মাদ্রাসার বেতন অনুমোদন হওয়ায় দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন। কালের খবর রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকার শীতার্ত মানুষের মাঝে শীতবস্ত্র কম্বল বিতরণ। কালের খবর শাহজাদপুরে সাংবাদিকদের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণের প্রতিবাদে প্রতিবাদ সভা । কালের খবর
তাড়াশ উপজেলার চলন বিলে ইরি-বোরো ধান লাগাতে ব্যস্ত কৃষকেরা। কালের খবর

তাড়াশ উপজেলার চলন বিলে ইরি-বোরো ধান লাগাতে ব্যস্ত কৃষকেরা। কালের খবর

মোঃ মুন্না হুসাইন তাড়াশ (সিরাজগঞ্জ) প্রথিনিধি, কালের খবর : শস্য ভান্ডার হিসেবে খ্যাত চলনবিল এলাকার সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার মাঠে আগাম জাতের ইরি-বোরো ধান রোপন শুরু করেছেন কৃষকরা। তীব্র শীতকে উপেক্ষা করে জমি চাষ, বীজতলা থেকে বীজ উঠানোর মাধ্যমে বোরো ধান রোপন শুরু করছেন।

তবে জমি মালিকরা জানিয়েছেন, প্রতিবিঘা জমিতে ইরি ধান রোপন করতে জন প্রতি শ্রমিককে মজুরী হিসেবে দিতে হচ্ছে ৫০০ থেকে ৬০০ শত টাকা।

তাছাড়া প্রতি বিঘা জমিতে বীজ, সার, চাষ, রোপন করাসহ কৃষকের খরচ হয় প্রায় সাড়ে ৪ হাজার থেকে ৫ হাজার টাকা । তাছাড়া পানি সেচের জন্য আলাদা খরচ তো রয়েছেই। প্রাকৃতিক দুর্যোগ, ধানের দাম কম, উৎপাদন খরচ বেশী হওয়ায় দিনদিন ইরি-বোরো ধানের আবাদ কমে আসছে। বোরো ধানের পরিবর্তে কৃষক অন্যান্য ফসলের দিকে ঝুকে পরছেন। সরিষাসহ রবিশস্য ছাড়া বাকি জমিতে চলছে আগাম জাতের ইরি-বোরো ধান রোপনের কাজ।

চলতি বছরে তাড়াশ উপজেলায় বোরো ধানের আবাদের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় ২২ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে।
ধান রোপনের কাজে নিয়োজিত মহেশরৌহালী গ্রামের রেজাউল ও রব্বান মোল্লা জানান, এখন কাজ কম। আমাদের কোন জমি নেই। খাস জায়গায় বসবাস করি। সারা বছরই কাজ করে থাকি চলন বিলের মাঠে।

এ বিষয়ে তাড়াশ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ মামুন আর রশিদ জানান, তাড়াশ উপজেলায় এবার আগাম জাতের বোরো ধানের আবাদ তুলনামুলক ভাবে কম। সরিষা ঘরে তোলার পর পুরোদমে শুরু হবে বোরো ধান রোপনের কাজ। চলতি বছরে তাড়াশ উপজেলায় ২২হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের লক্ষ্য মাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। তার মধ্যে আগাম জাতের বোরো ধান রোপন করছে প্রায় ৬ হাজার হেক্টর জমিতে।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com