মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর ২০২১, ০২:৪০ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
বাঞ্ছারামপুরে সীমা লঙ্ঘন করে বালু উত্তোলন গ্রামবাসীও বালুমহালের সঙ্গে সংঘর্ষের আশঙ্কা। কালের খবর মৌলভীবাজারে শ্রীমঙ্গল র‍্যাব ৯ অভিযানে গাঁজা উদ্ধার-গ্রেফতার ২ জন। কালের খবর মেহেরপুরে অস্ত্র ও বোমা উদ্ধার। কালের খবর নবীনগর উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের ৫১ সদস্য বিশিষ্ট নাটঘর ইউনিয়ন কমিটি গঠন। কালের খবর অভিনয়ের মাধ্যমে নিজেকে ফুটিয়ে তুলতে চাই নড়াইলের – সোহাগ হোসেন। কালের খবর নেত্রকোনার পূর্বধলায় হামলা, ভাংচুর ও লুটপাট নিরাপত্তাহীনতায় ৭ পরিবার। কালের খবর নবীনগরের ইউএনও’র সাফল্যের এক বছর। কালের খবর কারামুক্ত কাউন্সিলর ইকবাল। কালের খবর তালতলী তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রে ২২ চীনা নাগরিক করোনা আক্রান্ত। কালের খবর অনিয়মের তথ্য চাওয়ায় সাংবাদিকদের হেনস্থা করলেন ব্যাংক কর্মকর্তা
বাঞ্ছারামপুরে প্রকল্প কর্মকর্তার গাফলতিতে লক্ষাধিক মানুষ ঘরবন্দী

বাঞ্ছারামপুরে প্রকল্প কর্মকর্তার গাফলতিতে লক্ষাধিক মানুষ ঘরবন্দী

কালের খবর : ব্রাক্ষনবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার প্রকল্প কর্মকর্তা (পিঅাইও) মফিদুল অালমের অদূরদর্শীতারর কারণে ছলিমাবাদ ইউনিয়নের লক্ষাধিক মানুষ এখন ঘরবন্দী হয়ে পরেছে।

সাতবিলা,হুসেনপুর,হায়দর নগর,তাতুয়াকান্দি,কমলপুর,জুনারচর,চরলোহনিয়া, পাইকারচর,সব মিলে দেশের সর্ববৃহত ওয়াই ব্রীজ এর প্রধান রাস্তা ভুরভুরিয়া,সহ পূর্বাচলের ১ লক্ষাধিক মানুষ।

হুসেনপুর দক্ষিণ পাড়ার রাস্তার নির্মান কাজ চলছে একই সময়ে হায়দর নগর (বটতুলি) বাজারের সামনের একটি পুরাতন কালবাট অকেজো হওয়াতে নতুন করার জন্য তা ভাংগার কাজ চলছে। একই সময়ের দুটি রাস্তা বন্ধ করে দিয়াছে এলাকাতে পড়েছে হাহাকার ও বোবা কান্না । কেহ কিছু বলতে সাহস পাচ্ছেনা।

স্হানিয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. মতিন মিয়ার সাথে মোঠো ফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি কি করব। এ কাজ পিয়াওর অফিসের ও কন্টাকটার তারা আমার কথা শুনল না।আমি তাদেরকে বলে ছিলাম আমার এলাকার জনগনের কি হবে, কি ভাবে চলা চল করবে।তার লাইন না করে আপনারা রাস্তার কাজ ধরতে পারেন না।পাশের একটি রাস্তা আছে, ব্রীজ আছে তার এপরোজের মাটি ভরাট করা হয়নি।আর এই রাস্তার মাটি ভরাট করার জন্য তার বাজেট নাই। তাহলে আমি কেমনে করব। তার পরেও আমি দেখি কি করা যায়।এভাবে চলছে মাস ভড়া নির্মান কাজ। এলাকার যোগাযোগ ব্যাবস্থা এখন অনেক কষ্টকর হয়ে পড়েছে এসএসসি পরিক্ষার্থী গুলু সকাল হওয়ার আগে বাড়ি ছাড়তে হচ্ছে।

রিক্সা,অটবাইক,ও সিএনজি সহ কেন যানবাহন চলতে পারছে না।বাঞ্ছারামপুর আসতে তিনটি গাড়ি বদলাতে হয়।এভাবে আরো অনেক দিন চলবে বলে জনান এক ড্রাইভার।সে আরো বলেন যে আমি সংসার চালাব কি করে আমি আগে কামাইতাম ৫/৬ শত টাকা আর এখন আমরা যাত্রী পাই না।মালিকের কাটা(জমা) দিতেই হিমসিম খাইতে হয়।আর যাত্রীরা ঐ রুটে চলে যায়।৫০ টাকার ভাড়া ৯০ টাকা দিয়েও চলে যায়।এলাকার লোকজন আছে অনেক কষ্টে,চলা ফেরার করতে হয় অনেক সাবধানে। এমন করে চললে আমরা না খেয়ে মরতে হবে তাই আমাদের যতদ্রুত সম্ভব আমাদের রাস্তার বাধা খোলে দেয়া হোক।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com