বুধবার, ১০ অগাস্ট ২০২২, ০৫:২২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
নবীনগর পৌরসভায় সুবিধা বঞ্চিত মুসলিম পরিবার গুলো, দেখার যেন কেউ নেই। কালের খবর যশোরের অভয়নগরে ৮ বছরের শিশু কে ধর্ষণের পর হত্যা, ঘাতক পুলিশের হাতে আটক। কালের খবর ঢাকায় জার্নালিস্ট শেল্টার হোম শীঘ্রই উদ্বোধন!। কালের খবর মতলব দক্ষিণের ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান কামাল গাজী জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় জিডি। কালের খবর তালায় প্রতিবন্ধী সাংবাদিক সিরাজুলের বাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় থানায় এজাহার, নিরাপত্তার জন্য জিডি। কালের খবর সখীপুরে জমি নিয়ে সংঘর্ষে ছোট ভাই খুন। কালের খবর নবীনগর উপজেলা প্রকৌশলির বিরুদ্ধে কাজ না করে মোটা অংকের টাকা আত্মসাৎ এর গুঞ্জন পা দিয়ে লিখে চতুর্থবার জিপিএ-৫ পেলেন তামান্না। কালের খবর মৌলভীবাজার সাংবাদিক ইউনিয়নের নিবন্ধন পত্র গ্রহণ। কালের খবর পুলিশ সম্মেলন : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইজিপিসহ ৬ জন নিউ ইয়র্কে যাবেন। কালের খবর
জলবায়ু পরিবর্তনে কৃষিতে প্রভাব, বিশ্বব্যাপী উদ্বেগ

জলবায়ু পরিবর্তনে কৃষিতে প্রভাব, বিশ্বব্যাপী উদ্বেগ

এম আই ফারুক আহমেদ, ঢাকা :

কৃষি একটি দেশের মেরুদন্ড এবং এটি দেশের খাদ্য সুরক্ষার সমার্থক। খাদ্যে স্ব-পর্যাপ্ততা অর্জনের পাশাপাশি সবার কাছে খাদ্য নিশ্চিত করার বিষয়টি বাংলাদেশ সরকারের ‘ভিশন ২০২১’-এ গৃহীত হয়েছে। ফসল উৎপাদন বৃদ্ধির চাপ দ্রুত জনসংখ্যা বৃদ্ধির দ্বারা উদ্ভূত হয়েছে এবং এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চ্যালেঞ্জ। খাদ্য সুরক্ষা ছাড়াও এ খাতটি জিডিপির প্রায় ১২ শতাংশ অবদান রাখে এবং দেশের ৪৪ শতাংশ কর্মশক্তি নিয়োগ করে। এসব কারণে সরকার কৃষিক্ষেত্রে সর্বাধিক অগ্রাধিকার দিয়েছে। কৃষিক্ষেত্র সরাসরি গ্রামীণ দারিদ্র্যের সঙ্গে সম্পর্কিত কারণ এই খাতটি গ্রামীণ দরিদ্র জনগণের জীবিকা নির্বাহ করে যারা সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগোষ্ঠী। বাংলাদেশ এমন একটি দেশ, যা হিমালয় ও বঙ্গোপসাগরের মধ্যে অবস্থিত। এই দেশটি প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের ঝুঁকিতে রয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে লবণাক্ততা, ঝড়, খরা, অনিয়মিত বৃষ্টিপাত, উচ্চতাপমাত্রা, ফ্লাশ বন্যা ইত্যাদির তীব্রতা ত্বরান্বিত হয়। বাংলাদেশে আয় ও কর্মসংস্থান সৃষ্টিতে অনন্য অবদানকারী হলো কৃষিক্ষেত্র। শস্য উৎপাদন গ্রামীণ আয় বৃদ্ধি করে এবং দরিদ্র মানুষের জন্য কর্মসংস্থান সৃষ্টি করে।
কৃষিক্ষেত্রটি সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ খাত, কারণ এর উৎপাদনশীলতা পুরোপুরি তাপমাত্রা, বৃষ্টিপাত, হালকা তীব্রতা, বিকিরণ এবং রৌদ্রের সময়কাল যেমন জলবায়ুর কারণগুলোর ওপর নির্ভর করে। শস্য উৎপাদনের ওপর তাপমাত্রার প্রভাব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। প্রতি ফসলের প্রজনন বৃদ্ধির জন্য তাপমাত্রার পরিসীমা থাকে। যখন তাপমাত্রা সীমার নিচে পড়ে বা ওপরের সীমাটি অতিক্রম করে তখন ফসলের উৎপাদন সীমাবদ্ধতার মুখোমুখি হয়। বৃষ্টিপাত শস্য উৎপাদনকে প্রভাবিত করে থাকে। বৃষ্টিপাত হলো শস্য উৎপাদনের অন্যতম প্রধান জলবায়ুর কারণ। সব ফসলের বিকাশের জন্য জলের প্রয়োজন হয়, কিন্তু অতিরিক্ত বৃষ্টিপাত, বন্যা এবং জলাবদ্ধতার পরিস্থিতি ফসলের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়ায়। দেখা গেছে যে, উদ্ভিদ, প্রজনন ও পাকা পর্যায়ে বৃষ্টিপাতের ফলে ১ মিমি বৃদ্ধি আমন ধানের উৎপাদন যথাক্রমে ০.০৩৬, ০.২৩০ এবং ০.২৯২ টন হ্রাস পেয়েছে। পানির ঘাটতি ফসলের উৎপাদন সীমাবদ্ধ করে যখন বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) দ্বারা সরবরাহ করা সেচের কভারেজ মাত্র ৫ শতাংশ।

শস্য উৎপাদনের ওপর সমুদ্রের স্তর বৃদ্ধির প্রভাব : সমুদ্র স্তর বৃদ্ধি কৃষিকে তিনটি উপায়ে যেমন- লবণাক্ততার অনুপ্রবেশ দ্বারা, বন্যার দ্বারা এবং ঘূর্ণিঝড়ের ফ্রিকোয়েন্সি বৃদ্ধি করে এবং এর ক্ষয়কে গভীরভাবে প্রভাবিত করে। এই তিনটি কারণের সংযুক্ত প্রভাব উপকূলীয় অঞ্চলে কৃষিক্ষেত্র হ্রাস করে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উত্থানের কারণে লবণাক্ততার অনুপ্রবেশে মিঠাপানির অভাব এবং মাটির অবক্ষয়ের ফলে কৃষিক্ষেত্র হ্রাস পাবে। সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধির কারণে লবণাক্ততা ভবিষ্যতে আরো তীব্র সমস্যা হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। লবণাক্ততা কিছু গাছের পরিমিত শক্তি ও অঙ্কুরোদগমের হারও হ্রাস করে। বিভিন্ন গবেষণা থেকে দেখা যায় যে, সাতক্ষীরার একটি গ্রামে ধানের উৎপাদন হ্রাস তদন্ত করে জানা যায়, ২০০৩ সালে ধানের উৎপাদন ১৯৮৫ সালের তুলনায় ১,১৫১ টন কম ছিল। মোট হ্রাসপ্রাপ্ত উৎপাদনের মধ্যে ৭৭ শতাংশ ধানখেতকে চিংড়ি পুকুরে রূপান্তর করার কারণে এবং ২৩ শতাংশ ফলন হ্রাসের কারণে হয়েছিল। বিজ্ঞানীদের দ্বারা এরই মধ্যে জানা গেছে যে, আরো বেশি ক্ষেত্র স্তর বৃদ্ধির কারণ। সুতরাং ভবিষ্যতে কৃষি ফসলের ক্ষতি আরো বেশি হবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

শস্য উৎপাদনে বন্যার প্রভাব : বাংলাদেশের ফসল উৎপাদনে সবচেয়ে ক্ষতিকারক প্রভাব ফেলেছে বন্যা। ১৯৮৮ সালের বন্যার ফলে কৃষিক্ষেত্রে ৪৫ শতাংশ উৎপাদন হ্রাস ঘটেছে। প্রতি বছরই বন্যার ফলে হাজার হাজার হেক্টর জমির ফসল নষ্ট হয়ে যায়। যার ফলে বন্যা-পরবর্তী খাদ্যদ্রব্যের দাম তুলনামূলক হারে বৃদ্ধি পায়। এদিকে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে শস্য উৎপাদনে খরার প্রভাব পড়ছে। বেশির ভাগ সময় প্রাক-বর্ষাকাল এবং বর্ষা পরবর্তী সময়ে বাংলাদেশকে প্রভাবিত করে। গত ৫০ বছরে বাংলাদেশ প্রায় ২০টি খরা পরিস্থিতি ভোগ করেছে। ১৯৮১ এবং ১৯৮২ সালে খরা শুধু বর্ষার ফসলের উৎপাদনকে প্রভাবিত করেছিল। সাম্প্রতিক দশকগুলোতে উত্তর-পশ্চিম বাংলাদেশে খরার পরিস্থিতি ১৯৯০ সালের দশকে ৩.৫ মিলিয়ন টন ধানের উৎপাদন হ্রাস পেয়েছিল। অন্যান্য ফসলের (সব রবি ফসল, আখ, তামাক, গম ইত্যাদি) পাশাপাশি বহুবর্ষজীবী কৃষি সম্পদের যেমন বাঁশ, সুপারি, লিচু, আম, কাঁঠাল, কলা ইত্যাদি ফলগুলো খরার দ্ধারা প্রভাবিত হবে। ২০১০ সালের শুরুতে হাওর অঞ্চলে অভূতপূর্ব আকস্মিক বন্যায় প্রায় দেড় লাখ টন চালের ক্ষতি হয়েছিল। বিশ্বব্যাংক ও ওইসিডি অনুসারে, জলবায়ু পরিবর্তন বাংলাদেশের জন্য বিদেশি উন্নয়ন সহায়তার (ওডিএ) ৪০ শতাংশ ঝুঁকিপূর্ণ হতে পারে। দেশের জিডিপি বৃদ্ধির জন্য কৃষি খাতে বর্ধিত প্রবৃদ্ধি প্রয়োজন।

জাতীয় কৃষি গবেষণা সিস্টেমের (এনএআরএস) আওতাধীন সংস্থাগুলোর গবেষণার গবেষকরা এমন প্রযুক্তি উদ্ভাবনে নিযুক্ত আছেন; যা জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য স্থিতিশীল এবং প্রত্যাশিত শস্য উৎপাদন নিশ্চিত করে। গবেষণা ও স্ট্রেসের বিকাশ (লবণ, নিমজ্জন, খরা, উচ্চতাপমাত্রা) সহনশীল চাল এবং গমের জাতগুলো ২০ শতাংশ পর্যন্ত ফলন বৃদ্ধি করে খাদ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পারে। বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিআরআরআই) বিআর-১১, বিআর-৩৩, বিআরআই চাল-২২, বিআরআই-৫৩ এবং বিআরআই চাল-৫৪ জিন চিহ্নিতকারী প্রযুক্তি। বিআরআরআই-৪ জাতের বীজ বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) দ্বারা গুণিত হয় এবং লবণাক্তপ্রবণ দক্ষিণাঞ্চলের জেলাগুলো চাষের জন্য কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিএই) দ্বারা প্রচার করা হয়। বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি ইনস্টিটিউট (বিআইএনএ)-এর বিআর-৩৩ এবং বিআইএনএ-৭-এর মতো স্বল্পমেয়াদি জাতগুলোর উদ্ভাবন উত্তর বাংলাদেশের তথাকথিত মঙ্গাপীড়িত অবস্থাকে এড়াতে সফলভাবে চাষ করা হয়। বিআরআরআই চাল-৩২ এবং বিআরআরআই চাল-৫২ আকস্মিক বন্যার সময় ডুবে থাকতে পারে।

বহু সময় ধরে এটি পর্যবেক্ষণ করা হয়েছে যে, জলবায়ু পরিবর্তন কৃষিক্ষেত্রকে প্রভাবিত করে এটি একটি বড় বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। কৃষিতে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব বিশ্বব্যাপী উদ্বেগজনক, তবে বাংলাদেশের জন্য যেখানে জীবন ও জীবিকা কৃষির ওপর নির্ভরশীল, এটি জাতীয় খাদ্য সুরক্ষার জন্য একটি বড় হুমকিতে পরিণত হয়েছে। জাতীয় অর্থনীতিতে কৃষিকে প্রধান উপাদান হিসেবে বিবেচনা করে, বিভিন্ন সময় বাংলাদেশের কৃষিতে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব এবং দুর্বলতার দিকে মনোনিবেশ করার চেষ্টা করা হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তন এবং পরিবর্তিত পরিস্থিতির সঙ্গে খাপখাইয়ে নেওয়ার উপায় ও বাংলাদেশের লবণাক্ত সহনশীল, বন্যা সহনশীল এবং অন্যান্য ফসলের স্বল্প পরিপক্ব জাতগুলোর প্রতিক্রিয়া হিসেবে গ্রহণ করা যেতে পারেÑ এমন বিভিন্ন কৌশলও তুলে ধরেছে। গবেষণা থেকে এটিও পাওয়া গেছে যে, এই কৌশল,লো স্বল্পমেয়াদে সহায়তা করবে এবং এই বিস্তৃত কৃষি সম্প্রসারণ পরিষেবাদিগুলো কৃষকদের জন্য উপকার বয়ে আনবে।

জলবায়ু পরিবর্তন, যা মূলত জীবাশ্ম জ্বালানি জ্বলানোর ফলাফল; যা এরই মধ্যে পৃথিবীর তাপমাত্রা, বৃষ্টিপাত ও জলবিদ্যুৎ চক্রকে প্রভাবিত করে এবং এর প্রভাব বাংলাদেশের ওপর পড়ে, এই উদ্বেগকে জরুরি ও জোরালো পদক্ষেপ হিসেবে দেখা উচিত। ক্রমাগত বন্যা, খরা, তাপমাত্রার বিভিন্নতা, অনাবৃত বৃষ্টিপাত এবং লবণাক্ততা; যার ফলে ফসলের ক্ষয়ক্ষতি হয় সে পরিপ্রেক্ষিতে এই অবস্থা থেকে জরুরিভাবে উত্তরণের চেষ্টা করতে হবে। ধান উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন ও অর্জনের ফলে জনগণের মধ্যে কিছু পরিমাণে স্থিতিস্থাপকতা সত্ত্বেও, কৃষি উপকরণগুলোতে মূল্য অনুদান কৃষককে উৎপাদন ব্যয় বহনযোগ্য করে তোলার ক্ষেত্রে অবদান রেখেছে। বিশ্বব্যাপী উষ্ণায়নের প্রমাণ জমা হওয়ার কারণে জলবায়ু পরিবর্তনের বিষয়টি বিশেষ গুরুত্ব অর্জন করেছে এবং এখন এটি একটি বড় চ্যালেঞ্জ হিসেবে পরিণত হয়েছে। প্রায় সব দেশই জলবায়ু ধারা প্রভাবিত হয় এবং অন্যদের চেয়ে বাংলাদেশ তুলনামূলক বেশি। এটি বৈশ্বিক বিকাশের জন্য এবং বাংলাদেশের মতো দেশের জন্য একটি বড় হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে; যা জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বৈশ্বিক দৃশ্যে অন্যতম সক্রিয় উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে পরিলক্ষিত হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তন এবং এর বিরূপ প্রভাব জাতীয় দারিদ্র্য পরিস্থিতির প্রভাব হ্রাস করার জন্য এবং সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের সব প্রয়াসের বিরুদ্ধে একটি বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে।

জলবায়ু চাপ সহনশীল প্রযুক্তি (বীজ, সার, সেচ, কৃষি-সংক্রান্ত অনুশীলন) এবং তাদের সম্প্রসারণ গবেষণা জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে ইতিবাচক অভিযোজক হিসেবে কাজ করে। ফসল উৎপাদন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের ওপর সংকট এড়াতে প্রয়োজনীয়তার মূল্যায়নের বাস্তব সময়ের প্রভাবগুলোর ওপর বিস্তৃত ও সমন্বিত সমীক্ষা নীতিগত সিদ্ধান্ত গ্রহণের জন্য করা উচিত। ধারাবাহিক গবেষণা, পর্যবেক্ষণ এবং জ্ঞান পরিচালনা, প্রযুক্তি উন্নয়ন এবং স্থানান্তর, জলবায়ু পরিবর্তন এবং এর প্রভাবগুলো পরিচালনা করার জন্য প্রয়োজনীয় জলবায়ু বাস্তুচ্যুত সম্প্রদায়ের জন্য নতুন পরিস্থিতির সঙ্গে খাপখাইয়ে নিতে ও মোকাবিলায় নিবিড় প্রশিক্ষণ কার্যক্রম জরুরি। সুতরাং জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে কৃষিকে টেকসই অবস্থানে টিকিয়ে রাখতে হলে সহনশীল জাত উন্নয়নে জোর দিতে হবে। সেই সঙ্গে কৃষকের হাতের নাগালে যেন সব কৃষি উপকরণ ও সর্বশেষ কৃষিপ্রযুক্তি সহজলভ্য হয়; সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। অন্যথায় সামগ্রিক জনজীবনে এটি দীর্ঘমেয়াদি প্রভাব ফেলবে।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com