শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ১১:৫৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
জগন্নাথপুর বন্যার প্রভাবে হাটভর্তি গরু, ক্রেতা কম !! কালের খবর রূপগঞ্জে কারখানার বিষাক্ত পানিতে মরে গেলো ৩ লাখ টাকার মাছ : অসুস্থ অর্ধশতাধিক স্থানীয় বাসিন্দা। কালের খবর মুরাদনগরে  দুর্নীতি প্রতিরোধ বিষয়ক  বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত। কালের খবর বাঘারপাড়ায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের অর্থায়নে এক,শত শিক্ষার্থী কে বাইসাইকেল প্রদান। কালের খবর পৈত্রিক সম্পত্তি ভূমিদস্যু হাতে থেকে রক্ষার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন জগন্নাথপুরে রেমিটেন্স যোদ্ধার মৃত্যু এলাকায় শোকের ছায়া, জানাযা সম্পন্ন। কালের খবর সাইবার অপরাধ দমন ও অপপ্রচার ঠেকাতে একটি আলাদা ‘সাইবার পুলিশ ইউনিট’ হবে : সংসদে প্রধানমন্ত্রী রাইস ট্রান্সপ্লান্টারের মাধ্যমে ধানের চারা রোপণ কর্মসূচি উদ্বোধন। কালের খবর ইউপি চেয়ারম্যান পিতার এক ছেলে এমপি আরেক ছেলে উপজেলা চেয়ারম্যান। কালের খবর ঢাকা প্রেস ক্লাবের স্থায়ী সদস্য এম নজরুল ইসলামের মৃত্যুতে গভীর শোক। কালের খবর
গভীর ষড়যন্ত্রের শিকার কাউন্সিলর সাঈদ। কালের খবর

গভীর ষড়যন্ত্রের শিকার কাউন্সিলর সাঈদ। কালের খবর

 এম আই ফারুক আহমেদ ।।  কালের খবর :
 মতিঝিলে জামাত-বিএনপির মূল আতংক মুক্তিযুদ্ধার সন্তান ও জনপ্রিয় কাউন্সিলর এ কে এম মু্মিনুল হক সাঈদ। জামাত বিএনপির বিভিন্ন সময় আন্দোলন সংগ্রাম করে সফল হতে পারেনি সাঈদের জন্য। মতিঝিলের আওয়ামী লীগের মূল শক্তি এই কর্মীবান্ধব এ কে এম মমিনুল সাঈদ কে ধ্বংস করার জন্য বিভিন্ন সময় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ মিডিয়া কে ব্যবহার করতো বিএনপি জামাত। বিএনপি জামাতের ঘাঁটিকে আওয়ামী লীগের দূর্গ হিসেবে রূপ দিয়েছেন সাঈদ। রাজনীতিক পরিবারের এই সাঈদের জন্ম মতিঝিলেই।

সাঈদের দাদা ১৯২৯ সালে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে সক্রিয় ছিলেন।ন্যাশনাল মেডিকেল এন্ড নিওরো সাইন্স এমবিবিএস এর শেষ বর্ষের ছাত্র ছিলেন।সে সময় নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসু ঢাকায় আসলে তার সাথে ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলনে একাত্বতা প্রকাশ করেন এবং আন্দোলনে সক্রিয় থাকার দায়ে এমবিবিএস এর শেষ বর্ষের পরীক্ষায় অংশগ্রহন করতে দেয় নি কর্তৃপক্ষ!

সাঈদের বাবা একজন মুক্তিযোদ্ধা ১৯৭০ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর আঞ্চলিক ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক ছিলেন। ১৯৭৩ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া আঞ্চলিক আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। সাঈদের চাচা এ কে এম মোজাম্মেল হক ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পরিষদের সদস্য।সাঈদের ভাই আনোয়ার পারভেজ হারুত তার নিজ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান।সাঈদ ১৯৯৬ সালে ৩২ নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি ছিলেন পাশাপাশি বঙ্গভবন স্কুল কেন্দ্র ইউনিট আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন। ২০০০ সালে ৩২ নং ওয়ার্ড যুবলীগের আহবায়ক কমিটির ১নং যুগ্ম আহবায়ক ছিলেন।২০০২ সালে ৩ ফেব্রুয়ারী ৩২ নং ওয়ার্ড বর্তমান ৯নং ওয়ারেড় যুবলীগের কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্বাচিত সভাপতি।২০১২ সালের ১৪ই জুলাই মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদকের দায়িত্ব পান।

দীর্ঘ এই রাজনৈতিক চলার পথে সাঈদ সফলতার এবং দক্ষতার সাথে পাড়ি দিয়েছেন। জনগনের আস্থা অর্জন করে তাদের ভালোবাসায় এবং ভোটে নির্বাচিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর হয়েছেন। জনগনের ভালোবাসার প্রতি কৃতজ্ঞ থেকে মতিঝিল এলাকা থেকে মাদক-সন্ত্রাস ও চাঁদাবাজী বন্ধ করতে সিসি ক্যামেরার আওতায় নিয়ে এসেছেন।নিজ অর্থায়নে এলাকার যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নতিকরনের লক্ষ্যে রাস্তা করে দিয়েছেন। নিরাপত্তার দিক বিবেচনা করে এলাকার মূল এবং গুরুত্বপূর্ণ জায়গা গুলোতে গেট বসিয়েছেন। ছিনতাই এবং মাদক ব্যবসায়ীদের দৌরত্ব কমাতে সিকিউরিটি গার্ড রেখেছেন। যা এর আগে কোন ওয়ার্ডের কাউন্সিল করতে পারেনি।  তাই সাঈদের ভালো কাজ গুলোতে ঈর্শান্নিত হয়ে জামাত বিএনপি তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন প্রপাগান্ডা ছড়াচ্ছে।কারন সাঈদকে ধ্বংস করতে পারলেই মতিঝিল দখলে আনা সহজ হবে বিএনপি জামাতের।

সর্বশেষ তিনি বাংলাদেশ হকি ফেডারেশন নির্বাচনে অংশগ্রহন করে বিপুল ভোটে হকি ফেডারেশনের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন ।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com