শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ০২:৫২ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
যশোরের কেশবপুরে শান্তি স্থাপন ও সহিংসতা নিরসনে (পিএফজি, র) সভা অনুষ্ঠিত। কালের খবর রায়পুরার ছাত্রলীগ নেতা মামুনকে জড়িয়ে মিথ্যা ও হয়রানি মূলক ধর্ষণ মামলাসহ একাধিক মামলা করায় সর্বমহলে নিন্দা। কালের খবর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন-২০১৮ এর ৫৬ ধারার প্রয়োগ’ শীর্ষক সেমিনারে.প্রধান অতিথি সিএমপি কমিশনার। কালের খবর সহিংসতা নয়-শান্তির জন্য আমরা-এই শ্লোগান কে সামনে রেখে বাঘারপাড়ায় অনুষ্ঠিত হলো (পিএফজির) সম্মিলিত কার্যক্রম ও পরিকল্পনা প্রণয়ন সভা। কালের খবর ঢাকা জেলা রেজিস্ট্রার অহিদুল ইসলাম সাময়িক বরখাস্ত। কালের খবর বাঘারপাড়া প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি সাংবাদিক লক্ষণ চন্দ্র মন্ডলের মৃত্যুতে বিভিন্ন মহলের শোক। কালের খবর যুবদের নেতৃত্বে সঠিক কর্মপরিকল্পনা গ্রহনের ফলে , সমাজে সহিংসতা নিরসন ও শান্তি স্থাপন হতে পারে। কালের খবর কোরবানির পশু প্রস্তুত করতে ব্যস্ত সাতক্ষীরার খামারিরা। কালের খবর চট্টগ্রামের ইপিজেডে ছুরিকাঘাতে যুবক খুন, ঘটনায় জড়িত মূল হোতাসহ ২জন গ্রেপ্তার। কালের খবর রাজধানী ঢাকা শহরে কোনো ব্যাটারিচালিত রিকশা চলবে না : সড়ক পরিবহনমন্ত্রী। কালের খবর
দ্বীনি শিক্ষার গুরুত্ব ও অপরিহার্যতা। কালের খবর

দ্বীনি শিক্ষার গুরুত্ব ও অপরিহার্যতা। কালের খবর

খালেদ সাইফুল্লাহ সিদ্দিকী, কালের খবর : ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের বৃহত্তর অংশ ধর্মীয় শিক্ষাবহির্ভূত, তবে তাদের অনেকে ধর্মীয় অনুশাসনগুলো মেনে চলেন। আমাদের দেশের সাধারণ মুসলমানদের এক বিরাট অংশ ধর্মীয় প্রাথমিক বিষয়গুলো সম্পর্কে অবহিত এবং ধর্ম-কর্ম পালন করতে অভ্যস্ত, কিন্তু বর্তমানে মুসলিম ঘরানাগুলোর সন্তানদের এক বড় অংশ ধর্মবিমুখ হয়ে বড় হয়ে উঠছে, অনুরূপ দরিদ্র শ্রমজীবী মুসলমানদের বহু সন্তান লেখাপড়া তথা সুশিক্ষা হতে বঞ্চিত হয়ে বিপথেও পরিচালিত হচ্ছে। এদের অনেকে শিশু শ্রমিক হিসেবে বেড়ে উঠছে। ধর্মীয় শিক্ষার প্রতি অনীহা ও যারা আধুনিক শিক্ষার প্রতি ধাবিত হচ্ছে, তাদের মধ্যেও এমন আছে যারা মুসলিম পরিবারের সন্তান হয়েও ইসলামের অতি প্রয়োজনীয় প্রাথমিক বিষয়গুলো পর্যন্ত জানে না। এ সম্পর্কে ব্যাখ্যা না করেও বলা যায়, আমাদের দেশের বর্তমান প্রজন্মের এক উল্লেখযোগ্য অংশ মুসলিম সন্তান হিসেবে পরিচিতি লাভ করছে অথচ ইসলাম সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণাও তাদের নেই। এব্যাপারে অভিভাবকদের দায়িত্ববোধের অভাবকেই প্রথমত দায়ী করা যায়। ধর্মীয় ক্ষেত্রে অন্তত: তাদেরকে যদি ন্যুনতম জ্ঞান দেয়া হতো এবং ইসলাম ধর্মের অতি প্রয়োজনীয় করণীয় বিষয় গুলো শিক্ষা দানের ব্যবস্থা করা হত, তাহলে বড় হয়ে বিপথে যেতে হত না।
আবশ্যকীয় প্রাথমিক ধর্মীয় শিক্ষা প্রত্যেক মুসলিম সন্তানের কর্তব্য। আর এ শিক্ষা দান করা বা সুযোগ করে দেওয়া প্রত্যেক পিতা-মাতা, অভিভাবকের অপরিহার্য দায়িত্ব। ধর্মীয় শিক্ষা তথা ধর্মীয় জ্ঞান লাভের উপর ইসলাম যে গুরুত্ব আরোপ করেছে, তা কি আমরা সবাই জানি? কোরআন ও হাদীসে এ জ্ঞান লাভ সংক্রান্ত বিশদ বর্ণনা রয়েছে। নি¤েœ হজরত আলী (রা:) এবং বিখ্যাত সাহাবী হজরত মাআজ ইবনে জাবাল (রা:) এর কিছু মূল্যবান উক্তি-বাণী উল্লেখ করা হল, যা অনুসরণ যোগ্য।
‘মখজনে আখলাক’ নামক গ্রন্থে একটি ঘটনার উল্লেখ করা হয়েছে যে, একদা দশজন লোক হজরত আলীর (রা:) খেদমতে উপস্থিত হয়ে আরজ করল; ‘হে আমিরুল মোমেনীন! আমরা আপনাকে মাত্র একটি প্রশ্ন জিজ্ঞাসা করতে এসেছি। আমরা আশা করি যে, আপনি আমাদের প্রত্যেককে তার ভিন্ন র্ভিন্ন জবাব দান করবেন’। তারা প্রশ্ন করল; ‘হে আমিরুল মোমেনীন! জ্ঞান উত্তম, না ধন-সম্পদ?’
এই প্রশ্নের উত্তরে হজরত আলী (রা:) বললেন; ‘১. জ্ঞান উত্তম, কেননা ধন-সম্পত্তি তোমাকেই হেফাজত করতে হয়, আর জ্ঞান তোমরাই হেফাজত করে থাক। ২. জ্ঞান উত্তম, কেননা ধন-সম্পত্তি ফেরাউন ও হামানের উত্তরাধিকার, আর জ্ঞান নবীগণের মীরাজ। ৩. জ্ঞান উত্তম, কেননা ধন-সম্পত্তি খরচ করলে কমে যায় কিন্তু জ্ঞান বিতরণ করলে উন্নতি সাধিত হয়। ৪. জ্ঞান উত্তম, কেননা দেরী হলে মাল পুরাতন হয়ে যায়, পক্ষান্তরে জ্ঞানের কোন ক্ষতিই হয় না। ৫. জ্ঞান উত্তম, কেননা মালের জন্য সব সময় চোরের ভয় থাকে, কিন্তু জ্ঞানের জন্য এরূপ কোন আশঙ্কা নেই। ৬. জ্ঞান উত্তম, কেননা ধনী ব্যক্তিকে কোন কোন সময় কৃপণ বলা হয়, কিন্তু জ্ঞানী ব্যক্তিকে করিম বা দাতা বলা হয়। ৭. জ্ঞান উত্তম, কেননা জ্ঞান দ্বারা অন্তর আলোকিত হয়ে ওঠে, আর মাল অন্তরকে অন্ধকারাচ্ছন্ন করে তোলে। ৮. জ্ঞান উত্তম, কেননা ধন-দওলতের প্রাচুর্য্যরে ফলে ফেরাউন প্রভুত্ব-খোদায়ী দাবী করেছিল, কিন্তু জ্ঞান বিশালতার দরুন হজরত রসূলে করিম (সা:) সর্বদা এইরূপ বলতেন, ‘মা আবাদনাকা হাক্কা ইবাদাতিকা’। অর্থাৎ (হে খোদা!) আমরা যথাযথভাবে তোমার উপযোগী এবাদত বন্দেগী করতে পারিনি। ৯. জ্ঞান উত্তম, কেননা অর্থলোভে বহু শত্রæ সৃষ্টি হয়। আর জ্ঞান দ্বারা জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পায়। ১০. জ্ঞান উত্তম, কেননা কেয়ামতের দিবসে ধন-সম্পদের হিসাব দিতে হবে কিন্তু জ্ঞানের জন্য কোন হিসাব দিতে হবে না।’
হজরত মাআজ ইবনে জাবাল (রা:) বর্ণনা করেন; “রসূলুল্লাহ (সা:) বলেছেন, ‘১. দ্বীনী শিক্ষা (জ্ঞান) অর্জন কর, ২. জ্ঞান লাভ করলে অন্তরে আল্লাহর ভয় জন্মে, ৩. জ্ঞান অনুসন্ধান এবাদত স্বরূপ, ৪. জ্ঞান চর্চা করা আল্লাহর পবিত্রতা বর্ণনা করার সমতুল্য, ৫. জ্ঞান চর্চা করা জেহাদ স্বরূপ, ৬. অজ্ঞ ব্যক্তিকে জ্ঞান শিক্ষা দেওয়া দান স্বরূপ, ৭. প্রয়োজনের ক্ষেত্রে জ্ঞান বিতরণ করা পুণ্যের কাজ, ৮. জ্ঞান হালাল ও হারাম বস্তুকে চেনার প্রতীক স্বরূপ, ৯. জ্ঞানী ব্যক্তিরা বেহেশতি ও সৎ লোকেদের পথের দিশারী, ১০. একাকী অবস্থায় জ্ঞান সাথী ও দরিদ্র অবস্থায় বন্ধু, ১১. জ্ঞান একাকী অবস্থায় আলাপী বন্ধু স্বরূপ, ১২. জ্ঞান সুখ ও দু:খে পথ প্রদর্শক, ১৩. দুষমনের মোকাবেলার জন্য জ্ঞান মজবুত অস্ত্র, ১৪. বন্ধুদের নিকট জ্ঞান সৌন্দর্য্য, ১৫. আল্লাহ তাআলা জ্ঞানের বদওলতে অধ:পতিত জাতিগুলোকে উন্নত করেন এবং জ্ঞানীদের পথ প্রদর্শক ও নেতা মনোনীত করেন, লোক তাদের অনুসরণ করে, ১৬. জ্ঞান অন্তরের কালিমা দূর করে মানুষের মধ্যে মর্যাদা দান করে, ১৭. জ্ঞান অন্ধকারে আলো বিতরণ করে, ১৮. জ্ঞান মানুষকে দুনিয়া ও আখেরাতে উচ্চ মর্যাদার অধিকারী করে, ১৯. জ্ঞান চর্চা করা রোজা রাখার ন্যায় পূণ্যের কাজ, ২০. জ্ঞান অর্জন ও বিতরণ করা রাত্রের এবাদতের ন্যায়, ২১. জ্ঞান দ্বারা মানুষ আত্মীয় সুলভ ব্যবহার করতে শেখে এবং হালাল-হারাম চিনতে পারে, ২২. আমল জ্ঞানের অধীনে এবং জ্ঞান আমলের পথ প্রদর্শক স্বরূপ, ২৩. সৎ লোকেদের জ্ঞান দান করা হয় এবং অসৎ লোকেরা তা থেকে বঞ্চিত থাকে। (ইবনে আবদুল বার)

      দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন । 

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com