রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ০৯:৫৫ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
স্ত্রীর যৌতুক মামলায়,ব্যাংক কর্মকর্তা রাশেদের শেষ রক্ষা মিলেনি বাকলিয়া থানা পুলিশের হাতে গ্রেফতার। কালের খবর নবীনগর থানা প্রেস ক্লাবের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে কমিটি গঠন, সভাপতি মোঃ জসিম উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক মমিনুল হক রুবেল। কালের খবর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অনিয়মের অভিযোগে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক বরখাস্ত। কালের খবর ঘিওরে কৃষকদের মানববন্ধনে নিয়মিত বর্ষা ও জলবায়ু সুবিচারের জোরালো দাবি। কালের খবর বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর হাত ধরেই চট্টগ্রামের অভূতপূর্ব উন্নয়ন : খোরশেদ আলম সুজন। কালের খবর “ইন্টারন্যাশনাল প্রেস ক্লাব এন্ড হিউম্যান রাইটস” এর কেন্দ্রীয় কমিটির চূড়ান্ত প্রার্থিতা গ্রহণ। কালের খবর জগন্নাথপুরে প্রাথমিক শিক্ষক মদপান করে সাজা ভোগ করায় এলাকায় ক্ষোভ। কালের খবর ময়মনসিংহ বিআরটিএ টাকা ছাড়া কাজ করেন না সহকারী পরিচালক এস এম ওয়াজেদ, সেবাগ্রহীতারা অসন্তোষ। কালের খবর হাইকোর্টের রায় : মোটরযানে বিজ্ঞাপনের জন্য ফি নিতে পারবে না বিআরটিএ। কালের খবর অবশেষে চালু হচ্ছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সীমান্ত হাট, তাজা মাছের চাহিদা ভারতের। কালের খবর
বর্জ্য দূষণ ও দখলে বিপর্ণ কর্ণফুলী নদী। কালের খবর

বর্জ্য দূষণ ও দখলে বিপর্ণ কর্ণফুলী নদী। কালের খবর

দূষণ ও দখলের মুখে রয়েছে দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ নদী কর্ণফুলী। নদী রক্ষায় নানা সময়ে রাজনীতিবিদরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। নির্দেশনা এসেছে আদালত থেকেও। এছাড়াও, এটি দখল ও দূষণমুক্ত করার আহ্বান জানিয়েছে জাতীয় নদী সংরক্ষণ কমিশন। এসবের জেরে কর্ণফুলীকে দূষণ ও দখলমুক্ত করতে একটি মহাপরিকল্পনা প্রণয়ন করা হয়। এখনও বাস্তবায়িত হয়নি ওইসব প্রতিশ্রুতি ও মহাপরিকল্পনা। আর এ সুযোগেই নির্বিঘ্নে নদীতে ফেলা হচ্ছে বর্জ্য এবং দখল করা হচ্ছে নদীর জমি। ফলে দূষণ ও দখল হুমকির মুখেই রয়েছে কর্ণফুলী।

চট্টগ্রাম মহানগরীর ৩৬টি খাল ও নালা দিয়ে প্রতিদিন ২ হাজার ২০০ টন বর্জ্য কর্ণফুলী নদীতে পড়ছে। চট্টগ্রাম বন্দর সূত্রে জানা যায়, নগরীর ৫২টি খাল ও নালার মুখ রয়েছে কর্ণফুলী নদী অভিমুখে। এর অনেকগুলো দখল ও দূষণে ভরাট হয়ে ৩৬টির মোটামুটি অস্তিত্ব রয়েছে। মানব ও কঠিন বর্জ্য কোনো প্রকার পরিশোধন ছাড়াই কর্ণফুলী নদীতে পড়ছে প্রতিনিয়ত। এতে করে কর্ণফুলী নদীতে কঠিন বর্জ্য হিসেবে পলিথিন, বোতল, কাপড়সহ অন্যান্য পদার্থের একটি শক্ত স্তর হচ্ছে। একইভাবে অপরিশোধিত তরল বর্জ্যের কারণে নদীতে দূষণের মাত্রা দিনদিন বেড়েই চলেছে।

চট্টগ্রাম বন্দরের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা জানান, কর্ণফুলী নদীতে প্রতিদিন জোয়ার-ভাটার প্রভাব না থাকলে বহু আগেই এটি বুড়িগঙ্গার ন্যায় দূষণে পতিত হতো।

চট্টগ্রাম মহানগরীর খাল পুনঃখনন ও সংস্কার মূলত চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন এবং চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (সিডিএ) করে থাকে। চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের উদ্যোগে বর্তমানে প্রায় ৬ হাজার কোটি টাকার জলাবদ্ধতা নিরসনকল্পে প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে। এর মাধ্যমে বিলুপ্ত খাল, নালা খনন, সংস্কার এবং দেওয়াল নির্মাণকাজ চলছে। নগরীর বাসাবাড়ির কঠিন বর্জ্য অপসারণসহ এগুলো ডাম্পিং সিটি করপোরেশনের পরিচ্ছন্ন বিভাগ করে থাকে। নগরবাসীর পানির সমস্যা নিরসনে সুপেয় পানি সরবরাহের দায়িত্ব চট্টগ্রাম ওয়াসার।

একইভাবে মানব বর্জ্য পরিশোধনের দায়িত্ব চট্টগ্রাম ওয়াসার। ওয়াসা নগরীতে পানি সরবরাহ করলেও সুয়ারেজ কার্যক্রম নেই। যদিও সম্প্রতি সুয়ারেজ প্রকল্পের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। সুয়ারেজ ব্যবস্থা না থাকায় প্রতিদিনকার নগরবাসীর মনুষ্য বর্জ্যের শেষ ঠিকানা হচ্ছে নালা-নর্দমা-খালের মাধ্যমে কর্ণফুলী নদী।

’৯০-এর দশকের প্রথম দিকে নগরীর আগ্রাবাদ শেখ মুজিব রোডের নিচ দিয়ে বিশাল আকারের বক্স কালভার্ট দেয়ানহাট থেকে বারিক বিল্ডিং মোড় পর্যন্ত স্থাপন করা হয়। ঐ বক্স কালভার্টের মুখ পড়েছে বন্দরের ১ নম্বর জেটি বরাবর কর্ণফুলী নদীতে। ফলে নগরীর বিশাল অংশের সব ধরনের ময়লা আবর্জনা ঐ কালভার্ট দিয়ে কর্ণফুলী নদীতে পড়ছে। সে সময় কালভার্ট নির্মাণের বিরোধিতা করেছিল চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। কিন্তু সিটি করপোরেশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, কালভার্টের নদী মুখে সিলটেপ স্থাপন করা হবে যাতে প্রতিনিয়ত ময়লা আবর্জনা সরিয়ে নেওয়া যায়। কিন্তু বাস্তবে তা করা হয়নি। ফলে প্রায় ৩০ বছর ধরে সব ধরনের বর্জ্য কর্ণফুলী নদীতে পড়ছে।

একইভাবে চাক্তাই খালসহ বেশ কয়েকটি বড় খাল-নালা দিয়ে বিপুল পরিমাণ কঠিন বর্জ্য কর্ণফুলী নদীতে পড়ছে। তবে প্রতিদিন জোয়ার ভাটার কারণে কর্ণফুলী নদীতে পড়া ঐ সব ময়লা আবর্জনার বিরাট অংশ সমুদ্রে চলে যাচ্ছে। এরপরও একটা অংশ কর্ণফুলী নদীর তলদেশে প্রতিদিন জমা হচ্ছে যার বিরাট অংশ পলিথিন, পেট বোতল, কাপড়সহ অন্যান্য কঠিন বর্জ্য। এর ফলে বর্তমানে বুয়েটের তথ্যানুযায়ী কর্ণফুলী নদীর সদরঘাট থেকে উজানে শাহ আমানত ব্রিজ পর্যন্ত এলাকায় ২ মিটার থেকে ৭ মিটার পর্যন্ত কঠিন বর্জ্যের স্তর পড়েছে। এর ফলে ২০১৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ ক্যাপিটাল ড্রেজিং প্রকল্পের আওতায় ঐ এলাকায় দুই দফায় বিশাল অঙ্কের অর্থ ব্যয়েও কাঙ্ক্ষিত ফল পায়নি।

ঢাকায় নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে কর্ণফুলী নদীর নাব্য রক্ষায় চট্টগ্রাম বন্দরকে প্রধান ভূমিকা রাখার সুপারিশ করা হয়। বৈঠকে কর্ণফুলী নদীর সঙ্গে নগরীর সব খাল, নালা-নর্দমার মুখে পলিথিনসহ কঠিন বর্জ্য আটকানোর জন্য নেট স্থাপন চট্টগ্রাম বন্দরের নিজস্ব উদ্যোগে করার সুপারিশ করে সংসদীয় কমিটি।

চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের মুখপাত্র ওমর ফারুকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, বন্দর কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে বেশকিছু অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ করেছে। বাকিগুলো উচ্ছেদের প্রস্তুতিও নেওয়া হচ্ছে। তিনি জানান, আদালতের নির্দেশনা অনুযায়ী অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে আবারও তারা অভিযান পরিচালনা করবেন।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com