বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:৫২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
গাছে গাছে আমের মুকুল, মৌ মৌ ঘ্রাণে ব্যকুল মানুষ। কালের খবর নির্মাণ শ্রমিকদের কর্মস্থলে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানাল ইনসাব। কালের খবর ভাষা দিবস পদক প্রদান গুণীজন সম্মাননা ও লেখক সম্মেলন ২০২৪। কালের খবর মুরাদনগরে কৃষি কার্যক্রম পরিদর্শনে মার্কিন দূতাবাস প্রতিনিধি। কালের খবর কুষ্টিয়ায় বাজার থেকে ক্রয় করা মাংসে মিলল পুরুষাঙ্গ ! কালের খবর চট্টগ্রামের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারে অতিথি ডটকমের জমকালো ডায়মন্ড সেলিব্রেশন প্রোগ্রাম। কালের খবর শাহজাদপুরে সরিষা আনতে মাঠে যাচ্ছিলেন হাবিব, হঠাৎ বজ্রপাত। কালের খবর চোর চক্রের তিন সদস্য আটক দুটি মটরসাইকেল উদ্ধার কালের খবর টেকনাফে লক্ষাধিক ইয়াবাসহ এক মাদক ব্যবসায়ী আটক। কালের খবর একুশের বই মেলায় রাজু আহমেদ মোবারকের ‘সত্য সুন্দরের সন্ধানে’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন। কালের খবর
ঝিনাইদহের কোঁটচাদপুরে তেল ও পাথর বাহী ট্রেনের সংঘর্ষ ৫ তেল ট্যাংকার লাইনচ্যুত। কালের খবর

ঝিনাইদহের কোঁটচাদপুরে তেল ও পাথর বাহী ট্রেনের সংঘর্ষ ৫ তেল ট্যাংকার লাইনচ্যুত। কালের খবর

 সাঈদুর রহমান,ঝিনাইদহ জেলা প্রতিনিধি।। কালের খবর  :
ঝিনাইদহের কোটচাদপুরের সাফদারপুর রেল স্টেশনে পাথর ও তেলবাহী ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে ব্যপক ক্ষয়ক্ষতির ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে তেলবাহী ট্রেনের পাঁচটি তেলের বিটিও বগি লাইনচ্যুত হয়। এরমধ্যে তিনটি ট্যাংক ফেটে দেড় লাখ লিটার তেল মাটিতে ছড়িয়ে পড়েছে। বাকি দু’টি ট্যাংক সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে এতে কোন হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। সোমবার দিবাগত রাত ১.৪২ মিনিটে এ দূর্ঘটনা ঘটে। দূর্ঘটনার পর রাতেই পাথারবাহী ট্রেনটি দর্শনা রেল স্টেশনে ফিরিয়ে নেওয়া হয়। এতে খুলনার সাথে সারা দেশের ১০ ঘন্টা ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ ছিল। রেল কর্মীদের চেষ্টায় মঙ্গলবার বেলা ১১.৪৫ মিনিটে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়। কোটচাঁদপুর উপজেলার সাবদারপুর রেলস্টেশনের প্লাটফর্মের পূর্ব প্রান্তে এ ঘটনা ঘটে। রাতে ট্রেন দু’টির মুখোমুখি সংঘর্ষের বিকট শব্দে আশপাশের লোকজন ঘর থেকে বেরিয়ে পড়েন। এ সময় তারা দেখেন তেলবাহী ট্রেনের তিনটি কন্টেইনার লাইনের ধারে উল্টে পড়ে আছে। কন্টেইনার ফেটে তেল পড়ে আশপাশের গর্তে ¯্রােত বয়ে যােেচ্ছ। এসময় তারা বাড়ি থেকে হাড়ি পাতিল এনে তেল ভরে নিয়ে যান। এদিকে এই ট্রেন দুর্ঘটনার তদন্তে রেলওয়ের পাঁকশী সহকারী ট্রাফিক অফিসার আব্দুস সোবহানকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন কমিটি গঠন করা হয়েছে। তারা দূর্ঘটনার কারন জানতে কাজ শুরু করেছেন। এদিকে দূর্ঘটনার খবর পেয়ে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭ টার দিকে পাবনার ঈশ^রদী থেকে ১২০ টন ক্ষমতা সম্পন্ন রিলিফ ট্রেন ঘটনাস্থলে পৌছে উদ্ধার কাজ শুরু করে। দির্ঘ প্রায় ১০ ঘন্টা চেষ্টার পর মঙ্গলবার বেলা ১১.৪৫ মিনিটে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়। এদিকে দূর্ঘটনার পর শনিবার খুলনা থেকে ছেড়ে যাওয়া কপোতাক্ষ এক্সপ্রেস বারোবাজারে এবং রুপাসা এক্সপ্রেস এবং ঢাকাগামি চিত্রা এক্সপ্রেস যশোর স্টেশনে দাড়িয়ে ছিল। অপরদিকে ঢাকা থেকে ছেড়ে আসা খুলনাগামী চিত্রা এক্সপ্রেস ট্রেনটি চুয়াডাঙ্গা এবং বেনাপোল এক্সপ্রেস ট্রেনটি দর্শনা স্টেশনে দাড় করিয়ে রাখা হয়। ফলে দুর্পাল্লার যাত্রীদের সীমাহীন দূর্ভোগ পোহাতে হয়। অনেককে বিকল্প গাড়িতে করে গন্তব্যের উদ্দেশ্যে রওনা দিতে দেখা যায়। যদিও ধারনার থেকে অনেক দ্রুতই ট্রেন যোগাযোগ স্বাভাবিক করতে সক্ষম হয় উদ্ধার কাজে যোগ দেওয়া রেল কর্মীরা। উদ্ধার কাজে যোগ দেওয়া রেল মিস্ত্রি সাইফুল ইসলাম জানান, আমরা আগে রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক করতে কাজ করছি। পড়ে যাওয়া তেলের বগি রেল লাইনের পাশে সরিয়ে রাখা হয়েছে। পরে ব্লক পেলে রাতে অথবা দিনের যে কোন সময় উদ্ধার কাজ করা হবে। তবে ফেটে যাওয়া তিনটি কনটেইনার পরিত্যাক্ত হতে পারে বলে যোগ করেন এই তরুণ মিস্ত্রি। ঝিনাইদহে কোটচাদপুর সাফদারপুর স্টেশনের মাস্টার গোলাম মোস্তফা জানান, দর্শনা থেকে নওয়াপাড়াগামী পাথরবাহী ডিজেএন-২৬ ডাউন ট্রেন সাফদারপুর স্টেশনে এসে দাড়িয়ে ছিল। রাতে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা ডিজেলবাহী কেপি-২১ আপ ট্রেনটি পার্বতীপুরের উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাচ্ছিল। রাত ১.৪২ মিনিটের সময় কোটচাদপুর উপজেলার সাফদারপুর স্টেশনে আসলে চালক সিগনাল না মেনে দাড়িয়ে থাকা ট্রেনে স্বজোরে ধাক্কা দেয়। এসময় বিকট শব্দে তেলবাহী ট্রেনের পাঁচটি ট্যাংক লাইন থেকে ছিটকে পাশে পড়ে যায়। এরমধ্যে তিনটি তেলের ট্যাংক ফেটে তেল মাটিতে পড়ে যায়। এরপর থবর পেয়ে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৭টার েিদক পাবনার ঈশ^রদী থেকে রিলিফ ট্রেন এসে উদ্ধার কাজ শুরু করে। দির্ঘ ১০ ঘন্টা চেষ্টার পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়। এদিকে কোঁটচাদপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার আব্দুর রাজ্জাক জানান, তিনটি ট্যাংকারের তেল প্রায় সম্পুর্ণ ছড়িয়ে পড়েছে। প্রতিটিতে ৫০ হাজার লিটার তেল থাকে। এটি অত্যন্ত দাহ্য। যে কোন সময় চারিদিকে আগুন ছড়িয়ে পড়তে পারে। তাই আমরা রেললাইন ও আশপাশে পানি ছিটাচ্ছি এবং সবাইকে সতর্ক থাকতে বলছি। যেন কেউ কোন রকমেই আগুন জাতীয় কিছু ব্যবহার না করে। কারো ভুল হলেই বড় ধরনের দুর্ঘটনার শঙ্কা রয়েছে বলেও জানান এই ফায়ার কর্তা।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com