বুধবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২১, ০৯:৪২ অপরাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
প্রধান শিক্ষিকার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ, তদন্ত করছে দুদক ও মাউশি। কালের খবর তাড়াশে সেচ্ছাসেবকলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত। কালের খবর যশোর সদরে ইউপি নির্বাচন ৫ জানুয়ারি। কালের খবর কুমড়া বড়ি তৈরি করতে ব‍্যস্ত তাড়াশের কারিগররা। কালের খবর বাঘারপাড়ায় নির্বাচনী সহিংসতায় চেয়ারম্যান প্রর্থীসহ আহত ২০-অফিস ভাংচুর। কালের খবর যশোর সদর হাসপাতালে দালালদের কাছে জিম্মি রোগীরা। কালের খবর উৎপাদনে নতুন ‘দেশি মুরগি’, ৮ সপ্তাহে হবে এক কেজি। কালের খবর ইউপি নির্বাচনে শাহজাদপুরের ১০ ইউনিয়নে আ.লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা। কালের খবর যশোরের শার্শায় শোকজের জবাবের আগেই যুবলীগ নেতা বহিষ্কার! কালের খবর জাতীয় শ্রমিক লীগের উদ্যোগে বীর মুক্তিযোদ্ধা ফজলুল হক মন্টুর প্রথম মৃত্যু বার্ষিকী পালিত। কালের খবর
নবীগঞ্জে সিন্ডিকেটে রমরমা চলছে নিষিদ্ধ নোট-গাইড বানিজ্য। কালের খবর

নবীগঞ্জে সিন্ডিকেটে রমরমা চলছে নিষিদ্ধ নোট-গাইড বানিজ্য। কালের খবর

নবীগঞ্জ প্রতিনিধি, কলের খবর : হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার সিন্ডিকেটে রমরমা চলছে নিষিদ্ধ নোট-গাইড বানিজ্য।

বছরের শুরুতে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে বই বিতরণ করে সরকার।

একইসঙ্গে বাংলা ও ইংরেজি ব্যাকরণ বই দেয়া হয়। ফলে অতিরিক্ত গাইড কেনার প্রয়োজন হয় না। কিন্ত এক শ্রেনির অসাধু শিক্ষক বই না পড়িয়ে গাইড বই পড়ানোর প্রতি বেশি ঝুঁকছেন। এতে সৃজনশীল মেধা বিকাশে বাদাগ্রস্ত হচ্ছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

উপজেলা বিভিন্ন বইয়ের দোকানে প্রকাশে বিক্রি হয় এসব গাইড বই। নবীগঞ্জ উপজেলায় প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক মিলে প্রায় দু-শতাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

এইসব প্রতিষ্ঠানের এক শ্রেনির শিক্ষক বিভিন্ন প্রকাশনির বিক্রয় প্রতিনিধির সঙ্গে মিলিত হয়ে গাইড বই কিনতে শিক্ষার্থীদের বাধ্য করছেন।

এমন কি দোকান মালিকদের সহযোগিতায় ঘড়ে উঠছে একটি সিন্ডিকেট। একাধিক শিক্ষার্থী জানায়, কিছু অসাধু শিক্ষক এর কথা মত গাইড না ক্রয় করলে টেস্ট পরিক্ষায় কমন আসবে না।

এছাড়াও পরীক্ষায় ব্যবহারিক নম্বর কম দেয়া টেস্ট পরিক্ষায় বিভিন্ন ঝামেলা করা হয়।

নবীগঞ্জ বাজারের উসমানী রোডে সুজন লাইব্রেরি, ঐকই মার্কেটে রুপক লাইব্রেরি, নবীগঞ্জ জে কে সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে রিয়াজ লাইব্রেরি, উসমানী রোড আল-হেরা লাইব্রেরি, আউশকান্দি র.প.উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে কলেজ লাইব্রেরিসহ সকল লাইব্রেরিতে দেখা গেছে লেকচার, ইন্টারনেট, পাঞ্জেরী, দিকদর্শন, আলফা, নতুন কড়িঁ সহ বিভিন্ন প্রকাশনীর বই বিক্রি হচ্ছে।

গাইড কিনতে আসা এক অবিভাবক জানান, বাধ্য হয়ে ওই গাইড কিনতে হচ্ছে।

বছরের শুরুতে প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে বই বিতরণ করে সরকার। একইসঙ্গে বাংলা ও ইংরেজি ব্যাকরণ বই দেয়া হয়। ফলে অতিরিক্ত গাইড কেনার প্রয়োজন হয় না।

কিন্ত এক শ্রেনির অসাধু শিক্ষক বই না পড়িয়ে গাইড বই পড়ানোর প্রতি বেশি ঝুঁকছেন। এতে সৃজনশীল মেধা বিকাশে বাদাগ্রস্ত হচ্ছে বলে মনে করছেন সচেতন মহল।

নবীগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো সাদেক হোসেন বলেন গত বছর ভ্রামমান আদালত এই সব নোট-গাইট বিক্রেতা দের জরিমানা সহ সকল নোট- গাইট জব্দ করেছিল এখন আবার অতি তারাতাড়ি অসাধুু নোট-গাইট বিক্রেতা দের আইন এর আওতায় আনা হবে।

নবীগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী অফিসার বিশ্বজিত কুুুুমার বলেন,সরকারী নীতিমালা লঙ্ঘনকারী অসাধুতা নোট-গাইট বিক্রেতাদের আইননুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com