মঙ্গলবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬:৪৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
সিলেটে লড়াইয়ে শফিক চৌধুরী সরজমিন উনি এখন আশুলিয়ার রাজা মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ উপনির্বাচনে , আওয়ামী লীগের মনোনয়ন চান এম. এ. রহিম। কালের খবর : যুবলীগ নেতা উজ্জলের ফাঁদ, থানায় মামলা, চার বছর আমার দেহকে নিয়ে খেলেছে এখন আমার মেয়েকে চায়। কালের খবর প্রাণভয়ে গোপালগঞ্জ থেকে খুলনায় এসে জীবনের নিরাপত্তা দাবি। কালের খবর শায়েস্তাগঞ্জে অবৈধ লেনদেনের অভিযোগে ওসি ও এসআই প্রত্যাহার। কালের খবর স্বাস্থ্য অধিদফতরের ড্রাইভারের ঢাকায় একাধিক বাড়ি, গাড়ি, শত কোটির মালিক॥ কালের খবর ডেমরায় ইস্পাত কারখানায় লোহা গলানোর ভাট্টিতে ছিটকে পড়ে দগ্ধ ৫ । কালের খবর রাষ্ট্রের টাকায় প্লেজার ট্যুর আর কতো ?। কালের খবর নারায়ণগঞ্জ সিটি প্রেসক্লাবের নির্বাচনে টিটু সভাপতি লিংকন সাধারণ সম্পাদক। কালের খবর
শহরে জঞ্জাল, জনপ্রতিনিধিরা চুপ। কালের খবর

শহরে জঞ্জাল, জনপ্রতিনিধিরা চুপ। কালের খবর

কালের খবর ডেস্ক :

শহরকে তিলোত্তমা, স্কাই সিটি, নববধু কত না সাজে সাজানোর স্বপ্ন দেখিয়েছেন রাজনীতিক ও জনপ্রতিনিধরা। তবে বাস্তবে নারায়ণগঞ্জ শহর এখন জঞ্জালে পরিণত হয়েছে। ট্রাক, সিএনজি, লেগুনা, ব্যাটারি চালিত অটো রিকশার অবৈধ স্ট্যান্ড করে রাস্তা দখল করে রাখা হয়েছে দিনের পর দিন। সড়কের মাঝে বাস থামানো যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে। নগরবাসীর জন্য রাস্তা করলেও সেখানে দোকানি বসিয়ে চাঁদা তোলা হয়। ফুটপাত দখল করা নিজেদের অধিকার ভেবে ছাড়তেই চায় না হকাররা। চোখের সামনে এত কিছু ঘটলেও কোন কোন ক্ষেত্রে প্রশাসনের ভ‚মিকা রহস্যজনক আর অধিকাংশ জনপ্রতিনিধি এ নিয়ে তেমন কোন রা’ করেন না।

গতকাল শুক্রবার ছুটির দিনেও শহরের চাষাঢ়া এলাকায় অসংখ্য যানবাহন আর মানুষের ভিড় দেখা গেছে। সান্তনা মার্কেটের সামনে, শহীদ মিনার, সোনালী ব্যাংক মোড়, সমবায় মার্কেট, সায়াম প্লাজা, প্রেস ক্লাবের পাশের সড়ক, পপুলার গলি সহ এমন কোন জায়গা নেই যেখানে ভিড় ছিলো না। সরেজমিনে দেখা গেছে রাস্তা, ফুটপাত দখল করে দখলদাররা পণ্য বিক্রি করছে আর মানুষ তা কিনতে গাদাগাদি করে অবস্থান নিয়েছে। এরই মধ্যে চাষাঢ়ায় সোনালী ব্যাংকের সামনে থেকে সমবায় মার্কেট পর্যন্ত সড়কের অনেকাংশ জুড়ে সিএনজি রাখা হয়েছে।

সিটি কর্পোরেশন সূত্র জানিয়েছে, এখানে কোন সিএনজি স্ট্যান্ডের অনুমোদন দেয়া হয়নি। এরপর বছরের পর বছর এ অবৈধ স্ট্যান্ডটি টিকে আছে রহস্যজনক কারনে। সিএনজি ড্রাইভাদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, ট্রাফিক পুলিশের কতিপয় সদস্য প্রতিদিন তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে যান। তবে এ টাকার ভাগ কারা কারা পায় তা জানা নেই চালকদের।

খাজা সুপার মার্কেট, জিয়া হলের সামনে, শহীদ মিনারের সামনে, ২নম্বর রেলগেটের চারপাশে পায়ে চালিত রিকশা ও ব্যাটারি চালিত রিকশার জট লেগে থাকে সব সময়। কোথাও কোথাও ব্যাটারি চালিত অবৈধ ইজিবাইক রাস্তা দখল করে যাত্রি তুলে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, এসব অবৈধ স্ট্যান্ড টিকিয়ে রাখে একশ্রেনীর চাঁদাবাজ। শহরের সব ফুটপাতের দুই পাশ এমনকি রাস্তার অনেকটা দখল করে রাখে হকাররা। ইদানিং পুলিশ ধারাবাহিক উচ্ছেদ শুরু করলেও শহর থেকে হকার তাড়ানো সম্ভব হয়নি।

জানা গেছে, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা কড়া নির্দেশ দিলেও মাঠে থাকা পুলিশের সদস্যরা নমনীয়তা দেখায়। তারা উচ্ছেদে এসে হকারদের সরে যেতে বলে। হকাররাও মালামাল নিয়ে সরে যায় আর পুলিশ চলে গেলে ফের সড়ক ও ফুটপাত দখল করে। সচেতন মহলের মতে, হকার উচ্ছেদের সময়ে পুলিশের সামনেই মালামাল ও চকি সরিয়ে পাশের গলিতে রাখে হকাররা। এ দেখে সাধারণ মানুষ বুঝতে পারে পুলিশ চলে গেলে ফের হকাররা আসবে। তবে পুলিশ বুঝে কি-না তা বুঝে না কেউ।

বিভিন্নজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, স্থানীয় রাজনীতিক ও জনপ্রতিনিধিরা বিভিন্ন সময়ে শহরকে সুন্দর করার আশ্বাস দিয়েছে। তিলোত্তমা, স্কাই সিটি, বøু সিটি, নব বধুর মতো সাজানো সেইসব আশ্বাস এখনও বাস্তবে রূপ নেয়নি। অনেকে মনে করেন, স্থানীয় এমপি, মেয়র, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানরা গাড়ি দিয়ে চলাচল করে। তাদেরকে খুব একটা যানজট কিংবা জঞ্চালের মুখোমুখি হতে হয় না। অতীতে জনপ্রতিনিধি হওয়ার আগে তারা যখন রিকশায় চলতেন তখন কিছুটা হলেও অনুধাবন করতে পারতেন।

সচেতন মহলের মতে, এসব বিষয় প্রশাসন দেখ ভাল’র কথা। তবে তাদের উপর জনতার হয়ে জনপ্রতিনিধিদের একটা চাপ থাকা দরকার। যারা জনপ্রতিনিধি আছেন তাদের অধিকাংশই এখন সে দায়িত্ব পালন করেন না। বরং তারা প্রশাসন তোষামোদে ব্যস্ত থাকেন বলে মনে করেন সচেতন মহল।

নারায়ণগঞ্জ নাগরিক কমিটির সভাপতি এডভোকেট এবি সিদ্দিক বলেন, শহরে যানজটের মূল কারণ অবৈধ রিকশা ও হকার। তারা শহরের এক তৃতীয়াংশ রাস্তা দখল করে রাখে। পুলিশ কিছু দিন পর পর অভিযান চালায় পরে আবার হকাররা পুলিশকে ম্যানেজ করে। এ নাগরিক নেতার মতে, পুলিশ চাইলেই এর সমাধান হয়।

সু শাসনের জন্য নাগরিক-সুজন এর নারায়ণগঞ্জ জেলা সম্পাদক ধীমান সাহা জুয়েল এর মতে, এ শহরে যানবাহন চলাচলে সিটি কর্পোরেশনের কোন পরিকল্পনা নেই। শহরে সড়কের পাশে থাকা মার্কেট মালিকরা প্রভাবশালী। সড়কে বৈধ গাড়ি সহ অবৈধ গাড়ি রেখে সড়ক দখল করে রাখা হয় যে কারনে চাপ সৃষ্টি হয়। তিনি বলেন, প্রভাবশালীর ভয়েই হউক আর অব্যবস্থাপনার জন্যই হউক পুলিশ সঠিক দায়িত্ব পালন করে না।

দৈনিক কালের খবর নিয়মিত পড়ুন এবং বিজ্ঞাপন দিন..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

কালের খবর মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
Desing & Developed BY ThemesBazar.Com